ইউরোপ এবং মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে রবিবার থেকে পবিত্র রামাদানুল মোবারক শুরু

chad--------বিডি রিপোর্ট 24 টকম : আগামীকাল রোববার, ২৯ শে জুন, ২০১৪ ইং থেকে ইউরোপ এবং মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে থেকে ত্যাগ, তিতিক্ষা, ভ্রাতৃত্ব ও রাহ্‌মাতের মাস ‘পবিত্র রামাদানুল মোবারক’ শুরু। সেই অর্থে সোমবার থেকে বাংলাদেশে ‘পবিত্র রামাদানুল মোবারক’ শুরু।

বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর জন্য সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ, মহিমান্বিত এবং আরাধ্য মাস হচ্ছে ‘পবিত্র রামাদানুল মোবারক’। রাহ্‌মাত, মাগফিরাত এবং নাযাত এই তিন ভাগে বিভক্ত পবিত্র রামাদানুল মোবারকের এই মাস। মহান রাব্বুল আলামিন মুসলিম বিশ্বকে তাঁর পক্ষ থেকে এক বিশেষ উপহার হিসেবে এই মহিমান্বিত মাসকে উপহার হিসেবে দিয়েছেন।
 
ধনী-গরীবের ব্যাবধানকে কমাতে, ক্ষুধার জ্বালাকে উপলব্ধি করে আল্লাহ্‌ তাআলার রিজিকের উপর পূর্ণ আস্থা আনতে এবং পাপ কমিয়ে পুণ্যের সাগরে প্রবেশের জন্যই আল্লাহ্‌ এই বিশেষ ‘মাস’ কে আমাদের উপহার দিয়েছেন।
সমগ্র মুসলিম বিশ্ব পুরো বৎসর অপক্ষায় থাকে এই রামাদানের। সবাই কিছু কিছু পুঁজি করেন এই মাসে ভালোভাবে পবিত্র সাহ্‌রি ও ইফতার এবং সাধ্যমত দান খয়রাতের জন্য। এই মাসের সবচেয়ে বড় নেয়ামত হচ্ছে যতবেশী ইবাদত তার চেয়ে অনেক অনেক বেশি গুন সোওয়াব আল্লাহ্‌ আমাদের দান করবেন। এই মাসে সকলের মধ্যেই বিশেষ নম্রতা ও সৌহার্দপূর্ণতা পরিলক্ষিত হয়। সবাই খোলা মনে দান খয়রাত ও উপহার দিতে উদগ্রীব থাকে।
 
পবিত্র রামাদানুল মোবারকের সবচেয়ে পরিলক্ষিত ব্যাপার হচ্ছে যাকাত ও ফিতরা। যার মাধ্যমে ধনীদের অর্থ ও সম্পদকে মহান আল্লার দরবারে ‘হালাল’ করে নেয়া হয়। সেই সাথে গরীবদের অভাব কিছুটা হলেও লাঘব হয়। বাংলাদেশ সহ সারা বিশ্বে অনেক ইসলামিক প্রতিষ্ঠান আছে যারা যাকাত ও ফেতরার টাকা তুলে একত্রিত করে গরীব দুঃখীদের পুনর্বাসনও করে থাকেন। এতে ধনী-গরীবের ব্যাবধান যেমন কমে অপরদিকে তৈরি হয় এক ধনী গরীবের মাঝে এক অপূর্ব সেতুবন্ধন ও ভ্রাতৃত্ববোধের।
 
পুরোমাস সিয়াম পালনের পর মুসলিম বিশ্বের সবচেয়ে বড় দুই ধর্মীয় উৎসবের একটি ‘ঈদ উল ফিতর’ উদযাপিত হবে ধর্মীয় ভাব গাম্ভীর্য ও উৎসবমুখর পরিবেশে। ঈদের আনন্দে সকলে সব ভেধাবভেদ, দূরত্ব ভুলে একই কাতারে দাঁড়িয়ে ঈদের নামাজের মধ্য দিয়ে এক অভূতপূর্ব মিলনের নজীর স্তাপন করবে। ঈদে ছোট বাচ্চারা ‘ঈদি’ সংগ্রহে মহাব্যাস্ত থাকবে, যা সবার জিবনেই এক অনন্য স্মৃতি।