শিরোনাম

‘সাবেক ৭ মন্ত্রী-এমপির বিরুদ্ধে তদন্তের ফল শিগগির’

image_87875_0_81171বিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : দুদক সচিব মো. ফয়জুর রহমান চৌধুরী বলেছেন, মহাজোট সরকারের সাবেক সাত মন্ত্রী ও এমপির বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদের তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। অনুসন্ধান শেষ পর্যায়ে রয়েছে, শিগগির রেজাল্ট পাওয়া যাবে।

আজ বুধবার দুপুরে মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দুদকের সচিব এ কথা বলেন। এ সময় দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জের ঘটনার নূর হোসেনের বিরুদ্ধে প্রাথমিক অনুসন্ধান চলছে এবং এরজন্য দুদকের উপপরিচালক জাহাঙ্গীর আলমকে অনুসন্ধান কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

দুদক সচিব বলেন, বেসিক ব্যাংকের বিরুদ্ধে দুদক অ্যাকশানে আছে। বিশেষ করে যাদের বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত অভিযোগ রয়েছে তাদের সম্পদ বিবরণী চাওয়া হয়েছে, তবে খুব শিগগির রেজাল্ট দেখা যাবে।

দুদকের দুই কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তাদের দুজনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা রুজু করা হয়েছে। তাদের শোকজ করা হয়েছে। জবাব পাওয়ার পর অনুসন্ধান করা হবে এবং অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাদের শাস্তি হবে।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ২০১৪ সালে জানুয়ারি থেকে মে পর্যন্ত গত পাঁচ মাসে ১২৪টি মামলার অনুমোদন দিয়েছে দুদক। একই সঙ্গে ১৯৩টি চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল ও ২২৪টি চার্জশিটও অনুমোদন করেছে দুদক।

দুদক সচিব বলেন, গত পাঁচ মাসে দুদকে ৪০৪৮টি অভিযোগ জমা পড়ে কমিশন। কমিশনের তফসিলভুক্ত না হওয়ায় ৩৪৩০টি অভিযোগ বাদ পড়ে এবং যাচাই বাছাই শেষে ৫১২টি অভিযোগ অনুসন্ধানের জন্য গৃহীত হয়।

তিনি বলেন, ৫১২টি মধ্যে যাচাই বাছাই শেষে অনুসন্ধানের জন্য গৃহীত প্রতিবেদনের সংখ্যা ৫৭টি। এর মধ্যে গত পাঁচ মাসে মামলা নিষ্পত্তি সংখ্যা ৬১টি, সাজা হয়েছে ২৫টি এবং খালাস সংখ্যা ৩৬টি।

এছাড়া মে মাসে ৩৬টি মামলার চার্জশিট দাখিলের অনুমোদন দিয়েছে কমিশন এবং এ সব মামলায় ৮২ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে বলে জানান দুদক।