মুফতি হান্নানসহ ৮ জনের মৃত্যুদণ্ড : ৬জনের যাবজ্জীবন

hannanবিডি রিপোর্ট 24 ডপকম : রমনা বটমূলে ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে বোমা হামলায় ১০ জন নিহত হওয়ার ঘটনায় দায়ের করা হত্যা মামলায় মুফতি হান্নানসহ আট জনের মৃত্যুদণ্ড এবং ছয় জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. রুহুল আমিন সোমবার দুপুরে এ রায় দেন। সকাল সোয়া ১০টার দিকে ৯ আসামিকে কাঠগড়ায় হাজির করা হয়েছে।

এর আগে ২৮ মে উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে ১৬ জুন মামলার রায় ঘোষিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু রায় প্রস্তুত না হওয়ায় ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. রুহুল আমিন ২৩ জুন রায়ের জন্য পুনঃনির্ধারণ করেন।

এ মামলায় ৮৪ জন সাক্ষীর মধ্যে ৬১ জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়। সর্বশেষ গত ৫ মে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আবু হেনা মোস্তফার পুনঃসাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়।

২০০৮ সালে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় মুফতি হান্নান আটক হলে মামলার তদন্ত নতুন গতি পায়৷ আর আদালতে দেয়া তার জবানবন্দি থেকে বোমা হামলায় জড়িত অন্যান্যদের সম্পর্কেও জানা যায়।

২০০৮ সালের ২৯ নভেম্বর হরকাতুল জিহাদ (হুজি) নেতা মুফতি আবদুল হান্নানসহ ১৪ জনকে অভিযুক্ত করে সিআইডির পরিদর্শক আবু হেনা মো. ইউসুফ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

এরপর ২০০৯ সালের ১৬ এপ্রিল হত্যা মামলায় মুফতি হান্নান ও সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর ভাই মাওলানা তাজউদ্দিনসহ ১৪ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত৷

মামলায় মাওলানা আকবর হোসেন, মুফতি আব্দুল হান্নান, আরিফ হোসেন সুমন, শাহাদাত উল্লাহ জুয়েল, মাওলানা সাব্বির, শওকত ওসমান, এলাইস শেখ ফরিদ, মাওলানা আব্দুর রউফ, মাওলানা ইয়াহিয়া ও মাওলানা আবু তাহের বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন।

আর হাফেজ মাওলানা তাজউদ্দিন, হাফেজ জাহাঙ্গীর আলম, মো. আবদুল হাই, মুফতি শফিকুর রহমান ও মাওলানা আবু বকর এখনও পলাতক রয়েছেন।

আটকদের মধ্যে মুফতি হান্নান, আকবর ও আরিফ বোমা হামলার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে৷

প্রসঙ্গত, ২০০১ সালের ১৪ এপ্রিল (বাংলা ১৪০৮ সালের ১ বৈশাখ) ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠান চলাকালে বোমা হামলায় প্রাণ হারান ১০ জন। ঘটনার দিন বাবুপুরা পুলিশ ফাঁড়ির সার্জেন্ট অমল চন্দ্র বাদী হয়ে রমনা থানায় মামলাটি দায়ের করেন।