সুয়োরেজ কি ডোপ নিয়েছিলেন?

29083_suyerejবিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : কোস্টারিকার সাত ফুটবলারকে যদি ফিফা ডোপ পরীক্ষার জন্য ডেকে নিতে পারে তাহলে লুইস সুয়োরেজ বাদ পড়বেন কেন? কোস্টারিকা ইতালিকে খাদে ফেলেছে। ইংল্যান্ডকে শোক সাগরে ভাসিয়েছে। আর লুইস সুয়োরেজ ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুটি গোল করে চমকে দিয়েছেন গোটা ফুটবল বিশ্বকে। অসুস্থ সুয়োরেজ কি করে হঠাৎ জেগে উঠলেন তা নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে ফুটবল দুনিয়ায়। উরুগুয়ের প্রথম ম্যাচে যিনি ছিলেন হুইল চেয়ারে। চিকিৎসকরা বলেছিলেন অনন্ত দুটি ম্যাচ খেলার বাইরে থাকতে হবে। কিন্তু উরুগুয়ের কোচ অনেকটা নাটকীয়ভাবে সুয়োরেজকে প্রথম এগারোতে নিয়ে আসেন। দিয়াগো ফরল্যান সাইড লাইনে চলে যান। অবাক করার মতো বিষয়। সুয়োরেজ মাঠে নেমেই বাজিমাত করে দেন। তার খেলা দেখে মনেই হয়নি তিনি চোটে কাতর ছিলেন। কোস্টারিকার সাত ফুটবলারের ফিফার মেডিকেল বোর্ডে ডাক পড়ার পর এখন নড়েচড়ে বসছেন অনেকেই। বলছেন, সুয়োরেজ নিশ্চয়ই ইংল্যান্ড ম্যাচের আগে ডোপ নিয়েছিলেন? এখন এ নিয়ে হইচই করে কি লাভ? ভাগ্য তো বদলে গেছে। ইংল্যান্ডের প্লেনের টিকিট রেডি। নিয়মরক্ষার একটি খেলা খেলে তাদেরকে প্লেনে উঠতে হবে। লিভারপুল তারকা লুইস সুয়োরেজের জীবনে অনেক নাটকীয়তা আছে। আছে অনেক চমক। সতীর্থ প্লেয়ারের হাত কামড়ে দেয়ার কারণে সাসপেন্ড হয়েছেন অনন্ত দু’বার ২০ ম্যাচের জন্য। ইংল্যান্ডের পত্রপত্রিকায় সুয়োরেজকে নিয়ে প্রতিনিয়ত গল্প তৈরি করা হয়। বলা হয়, সুয়োরেজ বখাটে ছেলে। সুয়োরেজ নিজেও তা পছন্দ করেন। বলেন, ওরা গল্প বানায়। গল্প পড়তে বা শুনতে ভালই লাগে। পরে অবশ্য সুয়োরেজ বলছেন, ওরা বিদ্রƒপ করবেই। বিদ্রƒপ করা ওদের কাজ। আমার তাতে কিছু যায় আসে না। বৃটিশরা বলতো, ওই পাজি ফুটবলারটা কি করে লিভারপুলের মতো টিমের জার্সি গায়ে দেয়। এখন তারা কি বলবে। ডোপ টেস্টের কথা বলবে। ঈশ্বরের কথা বলবে। বলুক না। ওদের বলতে দিন। ইতিহাস আমার সঙ্গে। আমি জানি শেষ গোলটা কিভাবে করেছি। সবই ঈশ্বরের কৃপা। এ দিনটির জন্য অপেক্ষা করেছিলাম। ঈশ্বর কেমন করে যেন মিলিয়ে দিলেন। কোস্টারিকা ফুটবল বিশ্বের বিস্ময়। ডোপ পরীক্ষা করে ফিফা কি পেল তা এখনও জানা যায়নি। তবে ম্যারাডোনা বলেছেন, এটা বড়ই অসম্মানের। ফুটবলের নতুন তকমা যেখানে তাদের প্রাপ্য সেখানে ড্রেসিং রুম থেকে তাদের ডেকে ডোপ পরীক্ষার জন্য নিয়ে যাওয়ার মধ্যে ফিফা কি আনন্দ পাচ্ছে। বরং বিশ্বের অগণিত ভক্তরা কষ্ট পাচ্ছেন। ইতালির ঘুম হারাম করেছেন যিনি অর্থাৎ ব্রায়ান রুইজকে ডাকা হয়েছে ডোপ পরীক্ষায়। কোস্টারিকা কোচ বলছেন, মাদক নয়, আমরা কঠোর পরিশ্রম করেছি। এটা যদি আমাদের অপরাধ হয়ে থাকে তাহলে আমাদের শাস্তি দিক। কিন্তু দোহাই ফুটবলকে শাস্তি দেবেন না। ৫০ লাখ মানুষকে অপমানিত করবেন না। ওরা কোন দোষ করেনি। আমরাইবা কি দোষ করেছি। গ্রুপ অব ডেথ-এর কাফেলায় যোগ দিয়ে প্রমাণ করেছি, ফুটবল অঙ্কের হিসাবে চলে না। শুধু ভাগ্যইবা বলবেন কেন? ম্যাচ রিভিউ করুন। টিভিতে আবার দেখুন। তাহলে দেখবেন কোস্টারিকাই সেরা।