নূরের সীমান্ত পার হওয়া বিজিবির সীমাবদ্ধতা

1403158890._79918বিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : গত ১০ থেকে ১৩ জুন মিয়ানমার সংকট নিয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি)-এর মহাপরিচালক পর্যায়ের বৈঠকের আলোচনা প্রসঙ্গে বৃহষ্পতিবার এক প্রেস ব্রিফিংয়ের আয়োজন করে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।
সকাল ১১টায় রাজধানীর পিলখানায় বিজিবি সদর দপ্তরে অনুষ্ঠিত এই প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের জবার দেন বিজিবি মহাপরিচালক মে. জে. আজিজ আহমেদ।
মিয়ানমার সংকটের বিভিন্ন প্রসঙ্গে আলোচনার পর বিজিবি মহাপরিচালক ‘কড়া নজরদারি থাকতেও নূর হোসেন কিভাবে সীমান্ত পার হয়ে পশ্চিমবঙ্গে পালিয়ে গেল’- সাংবাদিকদের এমন এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, এটা আমাদের ব্যর্থতা নয়, সীমাবদ্ধতা। আমাদের জনবলে সীমাবন্ধতা রয়েছে। সীমান্তের প্রতিটি অংশ পূর্ণ নজরদারির ভেতর আনা এখনও আমাদের পক্ষে পুরোপুরি সম্ভব হয়নি।
ভারতের সঙ্গে আমাদের প্রায় চার হাজার ১ শ কিলোমিটার সীমান্ত রয়েছে। আমরা আমাদের সাধ্যমতো সর্বত্র নজরদারির চেষ্টা করেছি। আমরা সীমান্তের অনেক পয়েন্ট সিল করেছি, পেট্রল বাড়িয়েছি, স্থলবন্দরসমূহে চেকপোস্ট স্থাপন করেছি। তাই বলছি, এটা আমাদের ব্যর্থতা নয়, সীমাবন্ধতা।
নারায়ণগঞ্জে সাত হত্যা মামলার অন্যতম আসামি হাসমত আলি হাসুকে বিজিবি আটক করেও পরে ছেড়ে দিয়েছে- সাংবাদিকরা এমন অভিযোগ আনলে বিজিবি মহাপরিচালক বলেন, এই অভিযোগ সত্য নয়। হাসমত আলি হাসু নামে কাউকে বিজিবি আটক করেনি, ছেড়েও দেয়নি। এই অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন।