ফরমালিনযুক্ত মৌসুমী ফলে দক্ষিঞ্চালের বাজার সয়লাব

mango-lichuডাঃ আওরঙ্গজেব কামাল খুলনা থেকে ঃ বিষাক্ত রাসায়ানিক পদার্থ ফরমালিনযুক্ত আম লিচুসহ মৌসুমী ফলে দক্ষিঞ্চালের বাজার সয়লাব হয়ে গেছে। আর এসব ফল খেয়ে সাধারণ  ক্রেতারা বিভিন্ন্ রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। ঢাকায় প্রবেশের মুখে অভিযান চালিয়ে ফরমালিনযুক্ত হাজার হাজার মণ আম এবং লাখ লাখ লিচু বিনষ্ট করার পর আতংকিত ব্যবসায়ীরা ঝুঁকি না নিয়ে ফরমালিনযুক্ত বিষাক্ত আম লিচুসহ অন্যান্য মৌসুমী ফল খুলনাসহ দক্ষিঞ্চালে পাঠাচ্ছেন। আর দেদারছে তা’ বিক্রি হচ্ছে। নিকট অতীতে খুলনায় এত লিচুর সরবরাহ দেখা যায়নি। যা’ বর্তমানে দেখা যাচ্ছে। খুলনা মহানগরীর বিভিন্ন বাজারঞ্চ  ও রাস্তার মোড়ে লাল টসটসে বিষাক্ত লিচু বিক্রি হচ্ছে। একইভাবে বিক্রি হচ্ছে বিষাক্ত ফরমালিনযুক্ত ও কার্বাইড দিয়ে পাকানো আম। শুধু খুলনা মহানগরী নয়, খুলনা জেলার  ৯টি উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজারেও বিক্রি হচ্ছে বিষাক্ত আম ও লিচু। এ ছাড়া বাগেরহাট,সাতক্ষীরা,মাগুরা,নড়াইল জেলায় এসব বিষাক্ত মৌসুমী ফল বিক্রয় করতে দেখা গেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, শুধু আম বা লিচু নয়, জাম, আনারস, এমনকি কাঁঠালেও দেয়া হচ্ছে ক্ষতিকর রাসায়ানিক ফরমালিন এবং কার্বাইড। সাতক্ষীরা ও রাজশাহীর বিভিন্ন বড় বাগানে আম পেড়ে স্প্রের মাধ্যমে ফরালিন দিয়ে আম পাকানো হচ্ছে। আম চকচকে এবং সুন্দর রং ও সতেজ রাখার জন্য ফরামালিনের এ স্প্রে ব্যবহার করা হচ্ছে।ঞ্চ  এছাড়াও আম দ্রুত পাকানোর জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে ক্ষতিকর কার্বাইড। শুধু আম নয় লিচু, জাম, আনারস, কাঁঠালেও ব্যবহার করা হচ্ছে ক্ষতিকর এসব রাসায়ানিক দ্রব্য। সাধারণ ক্রেতারা সতেজ ও বাহারী রংয়ের আম কাঁঠাল লিচু, জামসহ বিভিন্ন মৌসুমী ফল অত্যন্ত আগ্রহের সাথে কিনে বাড়ী নিয়ে যাচ্ছেন। পরে সেগুলো খেয়ে পেটের পীড়াসহ নানাধরনের রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। এ বিষয়ে খুলনা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ফরেনসী বিভাগের সহযোগী অধ্যপক বলছেন, ফরামালিন ও কার্বাইড দিয়ে পাকানো ফল খেলে পেটের পীড়া এবং কিডনি ও লিভারের সমস্যা হতে পারে। এজন্য অত্যন্ত সতর্কতার সাথে মৌসুমী ফল খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।এদিকে খুলনা মহানগরীর বিভিন্ন ফলের বাজারে খুলনা সিটি কর্পোরেশন, বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউট (বিএসটিআই)সহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান অভিযান চালালেও ফরমালিন ও কার্বাইডের বিরুদ্ধে তেমন কোন সফলতা আসেনি। অথচ ঢাকায় অভিযান চালিয়ে হাজার হাজার মণ আম ও লাখ লাখ লিচুর মধ্যে ফরমালিনের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। খুলনায় তেমন কোন সফলতা আসেনি।এদিকে খুলনা মহানগরীর বড়বাজার ও ক্লে রোড এলাকার ফল ব্যবসায়ীরা বলছেন তারা ফরমালিন বা কার্বাইডযুক্ত কোন আম লিচু বা মৌসুমী ফল বিক্রি করছেন না। বিভিন্নভাবে তাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার করা হচ্ছে দাবি করে ব্যবসায়ীরা বলেন এতে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।