চকরিয়ায় আ.লীগ নেতার বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি,২০লাখ টাকার মালামাল ও অস্ত্র লুট

coxএম.শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, কক্সবাজার :

কক্সবাজারের চকরিয়ায় আওয়ামীলীগ নেতা ফজলুল করিম সাঈদীর বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। শনিবার দিবাগত রাতে ৭-৮জনের অস্ত্রধারী ডাকাতদল চকরিয়া পৌরশহরের জনতা মার্কেটস্থ তার বাড়ির পেছনের দরজা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকে দুই গৃহপরিচারিকাকে অস্ত্রের মুখে জিম্মী করে রেখে লুটে নিয়ে গেছে লাইসেন্সকৃত একটি বন্দুকসহ প্রায় ২০লাখ টাকার মালামাল। ঘটনার পর রোববার সকালে চকরিয়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৩ রাউন্ড গুলির খোসা উদ্ধার করেছে। পুরো চকরিয়া উপজেলায় একের পর এক ডাকাতি ও দস্যুতার ঘটনায় জনমনে বিরাজ করছে আতংক।

আওয়ামীলীগ নেতা ফজলুল করিম সাঈদীর মা সামসুন নাহার জানান, তার চোখের অপারেশন হওয়ায় গত ৮দিন ধরে তিনি চট্টগ্রামে মেয়ের বাসায় ছিলেন। বাড়িতে ছিল দুই বৃদ্ধা গৃহপরিচারিকা আনোয়ারা বেগম (৪৪) ও রশিদা বেগম (৪৮)। ঘটনার দিন শনিবার দিবাগত রাত আনুমানিক একটার দিকে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে পেছনের দরজা ভেঙ্গে ৭-৮জনের অস্ত্রধারী ডাকাতদল সাঈদীর বেডরুমের জানালা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকে। ওইসময় দুই গৃহপরিচারিকা ঘুম থেকে জেগে উঠে চেচামেচি শুরু করে। এসময় ডাকাতরা তাদেরকে শাররীকভাবে মারধর করে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে পাশের একটি রুমে আটকে রাখে। পরে দুই ঘন্টা ধরে বাড়িতে ডাকাতি শেষে সাঈদীর রুম থেকে লাইসেন্সকৃত একটি বন্দুক, একটি এলইডি টিভি, মুল্যবান কাগজপত্র ও কাপড়-চোপড় এবং অন্যন্যা মালামালমহ প্রায় ২০লাখ টাকার মালামাল লুটে নিয়ে যায়। ঘটনার সময় ডাকাতরা কয়েক রাউন্ড গুলি ফাঁকা বর্ষণ করে।

এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে গতকাল সকালে চকরিয়া থানার পুলিশের একটিদল বাড়িতে পৌছে ডাকাতির আলামত পরিদর্শন করেন। এসময় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৩ রাউন্ড গুলির খোসা উদ্ধার করে।

চকরিয়া থানা পুলিশ জানান, গত রবিবার দুপুরে সাঈদীর বাড়িতে গিয়ে ঘটনা পরিদর্শন করা হয়েছে। তবে এ ব্যাপারে তার পরিবার থেকে এখনো অভিযোগ দেয়া হয়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত: আওয়ামীলীগ নেতা সাঈদী একটি মামলায় গ্রেফতার হয়ে গত দেড়মাস ধরে কক্সবাজার জেলা কারাগারে বন্দি রয়েছেন।