প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রের সব শক্তির উপরে নিজেকে ক্ষমতাশালী করে তুলেছেন : রিজভী

44570_rezvi bnpবিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, জনগণের ওপর আক্রমণ চালিয়ে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে দিয়ে কন্ট্রাক্ট কিলিং চালিয়ে আওয়ামী ছোট-বড় ও পাতি নেতারা মনে করছে-এইভাবে বিএনপিকে বিলুপ্ত করা যাবে। এরকম রক্তাক্ত প্রক্রিয়া অনুসরণ করেও তারা অতীতে চেষ্টা করে দেখেছেন, ফলে কী পরিণতি হয়েছিল তা দেশবাসী জানে।
তিনি বলেন, যারা অতি উঁচু গলায় বিএনপি ও জিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে কুৎসা রটিয়ে নির্মম আক্রমণ চালিয়ে, রক্ত ঝরিয়ে নিজেদের নেত্রীকে খুশি করছেন তাদের সম্পর্কে আওয়ামী নেত্রী শেখ হাসিনার সতর্ক থাকা প্রয়োজন। ঠিক ৭২-৭৫ এ যারা শেখ মুজিবুর রহমানের গুণকীর্তন করতেন তাদের অনেকেই তার লাশ ডিঙ্গিয়ে  খন্দকার মোশতাকের মন্ত্রিসভায় পদসহ গুরুত্বপূর্ণ পদে অভিষিক্ত হয়েছেন। শনিবার বেলা ১১টার দিকে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
৯ জুন নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেনের সমর্থকদের ওপর হামলার ঘটনা তুলে ধরতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
রিজভী বলেন, “নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়ে চারদিকে মানুষের ধিক্কার উঠেছে। চাকরি বাঁচানোর জন্য দেশের শীর্ষ আমলারা যে কত নিচে নামতে পারেন, নির্বাচন কমিশন তার একটি উৎকৃষ্ট নমুনায় পরিণত হয়েছেন। নির্বাচন কমিশনের কাছে সরকার এমন একটি চুম্বক যে সরকার যেদিকে ঘোরে, নির্বাচন কমিশনের কাঁটাও অপরিবর্তিতভাবে সেদিকেই ঘোরে।”
বিএনপির এই যুগ্ম মহাসচিব আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন-জিয়াউর রহমান বেঁচে থাকলে তার বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ আনা হতো। এটাতো সবাই জানে যে, প্রধানমন্ত্রী নিজেকে রাষ্ট্রের সব শক্তির উপরে নিজেকে ক্ষমতাশালী করে তুলেছেন। তাই উনি যখন যা মনে করেন সেটাই করতে পারেন। সেখানে আইন, বিচার, সাক্ষ্য, প্রমাণ, তদন্ত, জনমত কিছুই দরকার পড়ে না।
আওয়ামী লীগকে অনাচারের দল হিসেবে আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, “আওয়ামী লীগ রক্তারক্তি, হত্যা, গুপ্তহত্যা ও ভোট ডাকাতিতে গভীরভাবে বিশ্বাসী একটি দল। ভোটদাতারা যেন তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে না পারেন সে ব্যবস্থাই করছে দলটি। এরা গণতন্ত্র বলতে বোঝে কেবল নিজেদের খেয়ালখুশি মতো স্বাধীনভাবে দাপিয়ে বেড়ানোকে।
সরকারের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করে তিনি আরো বলেন, “বর্তমান অবৈধ সরকারের সময় দুর্নীতির বিষাক্ত জীবাণু আকাশে-বাতাসে ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে। বিশ্ব মিডিয়ায় সেসব কর্মকাণ্ড শিরোনামও হয়েছে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, বিশেষ করে র‌্যাব আজ শিশুদের ঘুম পাড়ানোর ভয়ঙ্কর বর্গিতে পরিণত হয়েছে।