খাগড়াছড়িতে অজ্ঞান করে করে নগদ টাকা ও মূল্যবান মালামাল লুট

khagrachari-1খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি :
খাগড়াছড়ি জেলা শহরের আনন্দ নগর এলাকায় দুর্বৃত্তরা খাদ্যের সাথে নেশা জাতীয় দ্রব্য খাইয়ে এক স্বর্ন ব্যবসায়ীর পরিবারের সকলকে অজ্ঞান করে নগদ,স্বর্নলংকারসহ ঘরের মূল্যবান মালামাল নিয়ে গেছে।

জানাযায়, শুক্রবার দিবাগত রাত ১২ টার দিকে আনন্দ নগর গ্রামের কালী মন্দিরের পার্শ্বের বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে। পরিবারের ৭ সদস্যদের অজ্ঞান অবস্থায় খাগড়াছড়ি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে অনিল চন্দ্র ধর(৬৫)  তার স্ত্রী ঝর্ণারানী ধর(৫২) ও দোকানের কর্মচারী অজিদ ধর(৫৫) অবস্থা আশংকা জনক। বাকী দুজন সুজল চন্দ্র ধর(৪০) ও তার দোকানের কর্মচারী রূপন নাথ(২৬) তাদের জ্ঞান ফিরেছে।

সুজল চন্দ্র ধর জানান, রাতে দোকানের দুজন কর্মচারীসহ তারা দোকান থেকে ফিরে বাড়ীতে এসে বিশ্রাম নেওয়ার পর তারা এক সাথে সবাই ভাত খেয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। পরে তারা সবাই অজ্ঞান হয়ে গেলে দুর্বৃত্তরা ঘরের গ্রিল কেটে বাড়ীতে ঢুকে তার পকেটে থাকা নগদ ৩০ হাজার টাকাসহ ঘরের মূল্যবান জিনিপত্র নিয়ে যায়। এ সময় তার স্ত্রী মুনমুন ধরের জ্ঞান ফিরলেও ভয়ে কিছু বলতে পারেনি। পরে তাদের সবাইকে খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার ধারনা দুর্বৃত্তরা তাদের খাওয়ার আগে রান্না ঘরে ঢুকে তরকারীতে নেশা জাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে দিয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

খাগড়াছড়ি হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডাঃ সন্জীব ত্রিপুরা জানান, ২ জনের জ্ঞান ফিরেছে। বাকী ৩ জনকে পর্যবেক্ষনে রাখা হয়েছে। জ্ঞান না ফেরা পর্যন্ত তিনি কিছু বলা যাচ্ছে না।

অনিল ধরের ছোট ছেলে সুজলের ছোট ভাই উজ্জল কুমার ধর জানান, ধারনা করা হচ্ছে রান্না ঘরে রাতের খাবারের সাথে নেশা জাতীয় দ্রব্য মিছিয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। খাবার খেয়ে সবাই অজ্ঞান হয়ে গেলে ঘরের গ্রিল কেটে ঘরে ঢুকে আলমিরা ও ওভার ড্রব ভেঙ্গে নগদ টাকা ও মূল্যবান জিনিস পত্র নিয়ে গেছে।

খাগড়াছড়ি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মোঃ মিজানুর রহমান জানান ঘটনাটি শুনে আমি পুলিশ পাঠিয়েছি এবং বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।