জিয়া হত্যাকান্ডে খালেদা বেনিফিশিয়ারি

26515_ltrবিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : জিয়াউর রহমান হত্যাকান্ডে তার স্ত্রী খালেদা জিয়া বেশি সুবিধাভোগী বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। বুধবার সকালে দলের সভানেত্রীর ধানমন্ডির কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন বলেন, দেশবাসীর অনেকেই মনে করেন বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান হত্যাকান্ডে বেগম খালেদা জিয়া জড়িত, তদন্ত করলে তার যোগসূত্র খুঁজে পাওয়া যেতে পারে। তা না হলে কেন তিনি দু-বার ক্ষমতায় গিয়েও জিয়া হত্যার বিচার করলেন না।
মঙ্গলবার জিয়াউর রহমান হত্যাকান্ডে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা জড়িত থাকতে পারেন বলে মানুষের মাঝে প্রশ্ন আছে-বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের দেয়া বক্তব্যের জবাব দিতেই সংবাদ সম্মেলন করেন হানিফ।
তিনি বলেন, জিয়া হত্যা’র বিচার বিএনপি করবে না। কারণ এ হত্যাকান্ডে সবচেয়ে বড় বেনিফিশিয়ারি বেগম খালেদা জিয়া। বিএনপি দু’বার ক্ষমতায় এসেও জিয়া হত্যার বিচার করেনি। অপনি ক্ষমতায় ছিলেন জিয়াউর রহমান হত্যাকান্ডের বিচার কেন করেননি? তিনি বলেন, বিএনপি আবার কোন দিন ক্ষমতায় গেলেও জিয়া হত্যার বিচার করবে না। কারণ বিচার করলে তাদের ষড়যন্ত্রের কথাই দেশবাসী জানতে পারবে।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যাকান্ডের সাথে জিয়াউর রহমান জড়িত ছিলেন দাবি করে হানিফ বলেন, এই হত্যা করার পর খুনি মোশতাক কোন আস্থায়, বিশ্বাসে, সংযোগে, যোগসূত্রে নির্ভরতায় জিয়াউর রহমানকে সেনাপ্রধান করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার আগে ও পরে খুনি রশিদ-ফারুক চক্র কতবার, কি কারণে, কি প্রয়োজনে জিয়াউর রহমানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলেন?
তিনি বলেন, ‘বিবিসির সাক্ষাৎকারে খুনি ফারুক-রশিদ সুস্পষ্টভাবে বলেছেন, খুনি মোশতাক ষড়যন্ত্র করে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছে। এই হত্যাকাণ্ডের ষড়যন্ত্রের কথা তারা জিয়াকে জানিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের ষড়যন্ত্রে জিয়ার পূর্ণ সমর্থন পাওয়ার কথা রশিদ ফারুকরা বলেছে।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক ও খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, উপ দপ্তর সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক বদিউজ্জামান ভূইয়া ডাবলু, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সুজিত রায় নন্দী, আমিনুল ইসলাম আমিন প্রমুখ।