সেই ইন্টার্ণ চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে

sogsodবিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : স্বাস্থ্য মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম সংসদে জানিয়েছেন, সম্প্রতি সময়ে সারাদেশের মেডিকেল কলেজগুলোতে অরাজকতা ও বিশৃংখলা সৃষ্টিকারী ইন্টার্ণ ডাক্তারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে তদন্ত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার সংসদের প্রশ্নোত্তর পর্বে সোহরাব উদ্দিনের লিখিত প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে শুরু হওয়া সংসদ অধিবেশনে লিখিত প্রশ্নোত্তর টেবিলে উপস্থাপিত হয়। জাতীয় পার্টির এ কে এম মাইদুল ইসলারে অপর এক প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, দেশে অবৈধ পথে বেশ কিছু ড্র্রাগ আসছে। অবৈধ বা চোরাই পথে আসা এই ড্রাগ জীবন বাঁচানোর জন্য জরুরি। এসব প্রয়োজনীয় লাইফ সেভিং ড্রাগ ও এসেনশিয়াল ড্রাগ অবৈধ পথে দেশে আসে এবং হাসপাতালগুলোতে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ) ঔষধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এসব ঔষধের মধ্যে রয়েছে ব্যাথানাশক, কার্ডিওভাসকুলার, এন্টিহাইপারটেনসিভ, এন্টিকোয়াগুলেন্ট, এন্টিহ্যামারেজিক, ৪র্থ জেনারেশন এন্টিবায়োটিক, এন্টিরেসপিরেন্ট, হরমোন, এনজাইম, হাইড্র্রোকট্রিসন, স্টেরইড ইত্যাদি। এসব ঔষধ ভারত, পাকিস্তান, থাইল্যান্ড থেকে চোরাই পথে বাংলাদেশে আসে বলে তিনি জানান। মন্ত্রী বলেন, ১৯৮৯ সাল হতে ৩০ নভেম্বর ২০১৩ পর্যন্ত দেশে মোট ১ হাজার ২৯৯ জন এইডস রোগী সনাক্ত হয়েছে। সরকারী আর্থায়নে এসব রোগীদের জন্য সরকার বিভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। এরমধ্যে এনজিও পরিচালিত ৬টি কেন্দ্র থেকে এন্টি-রিট্রোভিরাল ড্রাগ এইডস রোগীদের মধ্যে বিনামূল্যে সরবরাহ করা হয়। ৮টি সরকারী হাসপাতালে এইডস রোগীদের শারীরিক অবস্থা নির্ণয় ও স্বাস্থ্য শিক্ষা ও কাউন্সিলিং সেবা প্রদান করা হচ্ছে। মন্ত্রী বলেন, স্বাস্থ্য বিভাগে কর্মরত ফার্মাসিস্ট ও মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পদসমূহকে নার্সাদের ন্যায় ২য় শ্রেণীতে উন্নীতকরণসহ বেতন স্কেল প্রদানের কার্যক্রম চলমান আছে।