দেশে মৎস্য ঘাটতি পুরণ করতে হবে : রংপুর বিভাগীয় কমিশনার

PIC-01বদরুদ্দোজা বুলু, পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ
রংপুর বিভাগে তিস্তা ক্যানেলসহ সকল জেলা উপজেলাগুলোর জলাশয়ে মৎস্য চাষ করে দেশের মৎস্য ঘাটতি পুরন করতে হবে। আর প্রকৃত পক্ষে জেলে নির্ণয় করে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি করতে হবে। আজ মঙ্গলবার সকালে মৎস্য অধিদপ্তর রংপুর বিভাগ রংপুরের আয়োজনে পার্বতীপুর মৎস্য প্রশিক্ষন ও সম্প্রসারণ কেন্দ্রে রংপুর বিভাগে তিস্তা সেচ ক্যানেলসহ অন্যান্য জলাশয়ে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধির কৌশল শীর্ষক কর্মশালা উদ্বোধন কালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রংপুর বিভাগীয় কমিশিনার মুহাম্মদ দিলোয়ার বখ্ত এ কথা বলেন।
রংপুর মৎস্য অধিদপ্তরের উপপরিচালক রকিব উদ্দিন বিশ্বাসের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ মৎস্য অধিদপ্তরের পরিচালক এম আই গোলদার। উপস্থিত ছিলেন এস,এ,ও কন্সালটেন্ট ক্রিসেন রানা ও পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহেনুল ইসলাম। কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন, দিনাজপুর জেলা মৎস্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তা হাসান ফেরদৌস সরকার। কর্মশালায় ৮ জন জেলা ও ৫৮ জন উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা অংশ নেন। প্রধান অতিথি বলেন, জাল যার জলাশয় তার। রংপুর বিভাগে সকল জেলা ও উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা ও জলাশয় ইজারা কমিটিকে প্রকৃত পক্ষে মৎস্যজীবি ও মৎস্যচাষী কারা তা নির্ণয় করে তাদেরকে জলাশয়গুলো লিজ বা বরাদ্দ দিতে হবে। সেই সাথে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি করে দেশের মৎস্য ঘাটতি পুরণ করতে হবে। কর্মশালা আয়োজন করেন রংপুর মৎস্য অধিদপ্তর। এদিকে, কর্মশালার দ্বিতীয় সেশনে জেলা ও উপজেলা কর্মকর্তাগণ গ্র“প অনুযায়ী মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি ও মৎস্য চাষে সুপারিশনামা মৎস্য অধিদপ্তরে প্রেরন করবেন বলে জানা যায়। পরে রংপুর বিভাগী কমিশনার পার্বতীপুর উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাদের সাথে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কক্ষে মত বিনিময় সভা শেষে উপজেলা ভুমি অফিস পরিদর্শন করেন।