গাইবান্ধার প্রতারক আইয়ুব মাষ্টারের খুটির জোর কোথায় ?

gaibandha-01গাইবান্ধা থেকে আঃ খালেক মন্ডলঃ গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে বহুল আলোচিত জীনের বাদশা নামক প্রতারকরা মোবাইল ফোনে দেশের বিভিন্ন এলাকার ফোন করে নিজেকে জীনের বাদশা পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন ভয়র্ভীতি ও গুপ্তধন দেয়ার মিথ্যা প্রলোভন দিয়ে কোটি কোটি হাতিয়ে নিয়ে  গাড়ী,বাড়ীর মালিক বনে গেছেন। এসব প্রতারকদের মধ্য রয়েছেন আইয়ুব মাষ্টার, ফজলুল হকসহ তাদের সহযোগিরা।

সুত্রমতে গত ২৪/৫/১৪ইং তারিখে জীনের টাকা তুলতে গিয়ে ঢাকার রামপুরা থানায় আটক হন গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মাড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা খিলক্ষেত থানার কর্মরত পুরিশ কনেষ্টোবল মাজেদুল ইসলাম । এর সহযোগি গোসাইপুর গ্রামের আজিজার রহমানের পুত্র ও উপজেলার খলসী মাদ্রাসার শিক্ষক আইয়ুব হোসেনের বিরুদ্ধে ঢাকা নিউ মার্কেট থানায় গত ২০/৪/১৪ইং তারিখে ২০নং একটি মামলা দায়ের হয়েছে। অপর সহযোগি বিশ্বনাথপুর গ্রামের মৃত নুরুল ইসলামের পুত্র ফজলুল হক ও আইয়ুব মাষ্টারে বিরুদ্ধে গত ১৪/১০/১০ইং তারিখে ঢাকা রামপুরা থানায় ৩২নং একটি মামলা দায়ের হয়। তাছাড়া ফজলুল হক,দূর্গাপুর গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের পুত্র রেজাউল,মৃত ফইমুদ্দিনের পুত্র তমিজ উদ্দিনগংদের বিরুদ্ধে গোবিন্দগঞ্জ থানায় প্রতারণা, হত্যার উদ্দ্যেশে জখমসহ বিভিন্ন অভিযোগে গত ২৬/১/১১ইং তারিখে ৪০নং, ১৪/২/১১ইং তারিখে ২৪নং, ২৬/৪/১২ইং তারিখে ৩৪নং ৩/৬/১২ইং তারিখে ৪নং, ২৭/১২/১২ ইং তারিখে ৩৮নং ও ১/২/১২ইং তারিখে ৪৮নং একটি অস্ত্র মামলা দায়ের হয়েছে। আইয়ুব মাষ্টারসহ এসব প্রতারকদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের হলেও প্রতারক আইয়ুব হোসেন বহাল তদবিরে একটি মাদ্রাসায়  কোন খুটির জোরে চাকুরী করে প্রতারণার কাজ চালিয়ে আসলেও অজ্ঞাত কারনে তার বিরুদ্ধে কোন ব্যব¯হা গ্রহণ করা হয়নি। সুত্রমতে এসব প্রতারকদের সংগে গোবিন্দগঞ্জ থানার কতিপয় এস,আই ও এ,এস.আই এর গভীর সর্ম্পক রয়েছে।  অভিজ্ঞ মহলের অভিযোগ আমলাতান্ত্রিক জটিলতা,পুলিশ প্রশাসনের ব্যর্থতার কারনে আইনের ফাঁকে এসব প্রতারকরা রেহাই পাচ্ছে।