প্রশ্নপত্র ফাঁসের মাধ্যমে সরকার দেশের ভবিষ্যত প্রজন্মকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গেছে : শিবির

cpবিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি আবদুল জব্বার বলেন, অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসে বেআইনি কর্মকা-ে লিপ্ত আওয়ামী সরকারের প্রতি জনগণ ধিক্কার জানাচ্ছে। মানুষের ক্ষোভ দিনেদিনে বেড়েই চলেছে। শিক্ষাঙ্গনগুলোতে ছাত্রলীগের একতরফা নৈরাজ্যের ফলে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ আজ নির্বাসনে চলে গেছে। প্রতিটি পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের মাধ্যমে সরকার দেশের ভবিষ্যত প্রজন্মকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গেছে।

তিনি আজ ছাত্রশিবির ঢাকা ক্যাম্পাস অঞ্চলের সদস্য শিক্ষাশিবিরে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। আজ সকাল ১০টায় রাজধানীর এক মিলনায়তনে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় শিক্ষা সম্পাদক মোবারক হোসেনের পরিচালনায় সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর জামায়াতের নায়েবে আমীর মাওলানা আব্দুল হালিম, সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি ও ঢাকা মহানগর জামায়াতের সেক্রেটারী নূরুল ইসলাম বুলবুল ও সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি ও ঢাকা মহানগর জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারী ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ, কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক আবু সালেহ মো. ইয়াহইয়া। শিক্ষাশিবিরে ঢাকা ক্যাম্পাস অঞ্চলের সকল শাখার দায়িত্বশীলবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

শিবির সভাপতি বলেন, আওয়ামীলীগ মনে করেছিল যেনতেন কায়দায় ক্ষমতায় আসলেই পার পেয়ে যাবে। কিন্তু তাদের সে আশা পূরণ হয়নি। উল্টো যেভাবে দলটির জনসমর্থন শূন্যের দিকে নেমে আসছে, তা দেখে আওয়ামী নেতাকর্মীদের ঘুম হারাম হয়ে গেছে। অবস্থাদৃষ্টে পরিস্কার যে, দেশের বিভিন্ন অঞ্চল ক্রমেই আওয়ামী রাজনীতি শূন্য হয়ে পড়বে।

তিনি বলেন, রাজধানীসহ সারাদেশের ক্যাম্পাসে আজ যে অস্থিতিশীলতা বিরাজ করছে, শুধু এই একটি কারণই সরকারের পদত্যাগের জন্য যথেষ্ট। কিন্তু গায়ের জোরে সরকার টিকে থাকতে চাইছে। ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীরা অস্ত্রের জোরে দেশের বিভিন্ন ক্যাম্পাসে মহড়া দিলেও তাদের মনে বিক্ষুব্ধ ছাত্রজনতার ভয় কাজ করছে। শিক্ষাঙ্গনে ধারাবাহিকভাবে ছাত্র হত্যায় লিপ্ত ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীদের ছেড়ে দেয়া হবে না।

নূরুল ইসলাম বুলবুল বলেন, জনমনে যেই ক্ষোভ জমেছে, সেই ক্ষোভের বিষ্ফোরণ এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। নির্যাতক শাসকের পরিণাম অতীতে কখনোই ভালো হয়নি, আওয়ামীলীগেরও হবে না। নির্যাতন চালিয়ে তারা জনগণ থেকে দূরে সরে গেছে, আর জামায়াত-শিবির জনগণের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মাওলানা আ হ ম আব্দুল হালিম বলেন, শত নির্যাতন সয়েও ছাত্রশিবির নেতাকর্মীরা যে ধৈর্য্যরে পরিচয় দিয়েছে, অচিরেই তার সুফল পাওয়া যাবে ইনশাআল্লাহ। বাংলাদেশের মানুষ জামায়াত-শিবিরের সাথে আছে। ধৈর্য্য ও সাহসের সাথে পথ চলতে থাকলে কোন বাধাই আমাদের পথচলাকে বাধাগ্রস্থ করতে পারবে না।

ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ বলেন, শিক্ষাঙ্গন হচ্ছে মানুষ গড়ার কারিগর, ছাত্রলীগের নৈরাজ্যের কারণে আজ শিক্ষাঙ্গনগুলোতে শিক্ষার পরিবেশ নেই। ছাত্রশিবিরকে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে কাজ করে যেতে হবে। প্রতিটি ছাত্রের কর্ণকুহরে ইসলামের সুমহান আদর্শের বাণী পৌছে দিতে হবে।