হিল উইমেন্স ফেডারেশনের খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা কমিটি গঠিত

OLYMPUS DIGITAL CAMERAখাগড়াছড়ি প্রতিনিধি :
“নারী ও শিশুর উপর যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলুন, পূর্ণস্বায়ত্তশাসনের লড়াইয়ে সামিল হোন” এই শ্লোগানকে ধারণ করে হিল উইমেন্স ফেডারেশনের খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা কমিটি গঠিত হয়েছে।

খাগড়াছড়ি জেলা কমিটির উদ্যোগে ১৯ মে সোমবার সকাল ১০টায় খাগড়াছড়ি সদরের স্বনির্ভরস্থ ঠিকাদার সমিতি ভবনের হলরুমে এক সভার মাধ্যমে এ কমিটি গঠন করা হয়। ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটিতে মামুনি চাকমাকে সভাপতি, সোহেলী ত্রিপুরাকে সাধারণ সম্পাদক ও মিতা চাকমাকে সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি কণিকা দেওয়ান নতুন কমিটির সদস্যদের শপথ বাক্য পাঠ করান।

কমিটি গঠন উপলক্ষে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন হিল উইমেন্স ফেডারেশনের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সভাপতি মিশুক চাকমা। এতে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন ইউনাইটেড পিপল্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ)-এর খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা ইউনিটের সমন্বয়ক সমশান্তি চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের খাগড়াছড়ি জেলা কমিটির আহ্বায়ক জিকু ত্রিপুরা ও পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক রতন স্মৃতি চাকমা প্রমুখ। হিল উইমেন্স ফেডারেশনের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শিখা চাকমা সভা পরিচালনা করেন।

সভা শুরুতে শোক প্রস্তাব পাঠ করেন হিল উইমেন্স ফেডারেশনের খাগড়াছড়ি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় শাখার সদস্য মিনতি চাকমা। শোক প্রস্তাব পাঠ শেষে শহীদদের উদ্দেশ্যে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

সভায় বক্তারা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে প্রতিনিয়ত নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে। এসবের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য নারীদেরকে সংগঠিত হতে হবে, এলাকায় এলাকায় সংগঠন গড়ে তুলতে হবে। মা-বোন ও মাতৃভূমির ইজ্জ্বত রক্ষার জন্য অধিকার আদায়ের আন্দোলনের যুক্ত হওয়া ছাড়া আর কোন পথ নেই বলে বক্তারা উল্লেখ করেন।

বক্তারা আরো বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে ভূমি বেদখল, যৌন নিপীড়নসহ বিভিন্ন অন্যায় কাজে সেটলারদের পাশাপাশি সেনাবাহিনীর কায়েমী স্বার্থবাদী অংশটিও জড়িত রয়েছে। এসবের বিরুদ্ধে সতর্ক থেকে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। পাহাড়ি নারীরা প্রতিবাদী হলেই সকল ধরনের নিপীড়ন-নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা সম্ভব হবে।

বক্তারা দায়িত্বশীলতার সহিত সংগঠনের কাজ করে যাওয়ার জন্য নতুন কমিটির সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানান।

সভা শেষে ঠিকাদার সমিতি ভবনের সামনে থেকে একটি র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি শহরের মহাজন পাড়ার সূর্যশিখা ক্লাবের সামনে থেকে ঘুরে এসে চেঙ্গী স্কোয়ারে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের পর আবার ঠিকাদার সমিতি ভবনে এসে শেষ হয়।