নকলায় ড্রামসিডারে ব্রি-৫৮ ধানের সাথে সমন্বিত মাছ চাষে সাফল্য

Sherpur Nokla Newsশাকিল মুরাদ, শেরপুর প্রতিনিধি :

শেরপুরের নকলায় বোরো মৌসুমে ড্রামসিডার পদ্ধতিতে ব্রি-৫৮ ধানের সাথে সমন্বিত মাছ চাষে দারুণ সাফল্য পাওয়া গেছে। এতে মাত্র ১শ ৩৭ দিনে ব্রি-৫৮ ধানের একরে ৮০ মণ ফলন পাওয়া গেছে। একই সাথে কৃষক ওই জমির মাছ চাষ থেকে আরও প্রায় এক লাখ টাকা অতিরিক্ত আয় করা সম্ভব হচ্ছে। স্থানীয় কৃষি বিভাগের অনুপ্রেরণায় নকলা উপজেলার চাঁনপুর গ্রামের কৃষক সাইদুল ইসলাম ৫৪ শতক জমিতে ড্রামসিডানের ধানের সাথে সমন্বিত মাছ চাষ করে এমন সাফল্য পেয়েছেন।

১৮ মে রবিবার কৃষক সাইদুল ইসলামের ড্রামসিডার পদ্ধতিতে ব্রি-৫৮ ধানের সাথে সমন্বিত মাছ চাষের ওই প্রদর্শনী প্লটের শস্যকর্তন মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বাংলাদেশ ধান গবেষনা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) পরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর ও বিশেষ অতিথি খামারবাড়ীর উপ-পরিচালক কৃষিবিদ সুভাষ চন্দ্র দেবনাথ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান লিটন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আশরাফ উদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। ব্রি পরিচালক (প্রশাসন) ড. মো. শাহজাহান কবীর বলেন, আমরা ধান চাষের জন্য নতুন নতুন জাত উদ্ভাবন ও নিত্যনতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করছি। যাতে করে কিভাবে ধানের জীবনকাল কমিয়ে আনা যায় এবং উৎপাদনও যাতে কম না হয়। তাছাড়া কৃষকরাও যাতে লাভবান হয় এবং সহজেই তারা যাতে নিত্যনতুন প্রযুক্তিগুলো ব্যবহার করতে পারে। শেরপুরের নকলায় কৃষক সাইদুল ইসলাম ব্রি-৫৮ জাতের ধান ড্রামসিডার পদ্ধতিতে বপন করে যেভাবে সমন্বিত মাছ চাষ করে সফলতা পেয়েছেন এতে কৃষকরা আরও অধিক লাভবান হবে। নকলা উপজেলার উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আতিকুর রহমান বলেন, আমরা আশা করছি ড্রামসিডার পদ্ধতিতে ব্রি-৫৮ ধানের সাথে সমন্বিত মাছ চাষ প্রযুক্তি কৃষকদের মাঝে দ্রুত ছড়িয়ে পড়বে এবং এতে কৃষকরা অধিক লাভবান হতে পারবেন।