ইভটিজিং’র প্রতিবাদ করায় স্কুল ছাত্র কে হাতুড়ি পেটা

kushtia-17আব্দুল মমিন, কুষ্টিয়া অফিস : কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় ইভটিজিং’র প্রতিবাদ করায় বখাটেরা জুনিয়াদহ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেনীর মেধাবী ছাত্র শাহাবুল ইসলাম কে হাতুড়ি পেটা করেছে। শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে বিদ্যালয়ের ক্লাস  রুমে বখাটে সন্ত্রাসীরা তাকে হাতুড়ি পেটা করে। হামলার প্রতিবাদে এবং বখাটে সন্ত্রাসীদের বিচারের দাবীতে বিক্ষুদ্ধরা বিদ্যালয়ের প্রধান গেটে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

জানা গেছে, ভেড়ামারা উপজেলার জুনিয়াদহ ইউপির মির্জাপুর নহিরের মোড় এলাকায় বুধবার সন্ধ্যা রাতে চরক পূর্জা চলছিল। এসময় ওই এলাকার ষোড়শী এক যুবতীকে ইভটিজিং করে জুনিয়াদহ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শরিফ হোসেন’র ভাতিজা লম্পট মোস্তফা। এ সময় স্থানীয় কয়েকজন যুবক জোরালো প্রতিবাদ করে লম্পট মোস্তফাকে তাড়িয়ে দেয়। এ ঘটনার পরই লম্পট মোস্তফা জুনিয়াদহ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেনীর (মানবিক বিভাগ রোল নং ১৭) মেধাবী ছাত্র শাহাবুল ইসলাম’র সাথে যোগাযোগ করে ইভটিজিং’র শিকার মেয়ে এবং প্রতিবাদকারী ৩ জনের মোবাইল নাম্বার চাই। শাহাবুল মোবাইল নাম্বার দিতে অস্বীকার করে ইভটিজিং বিষয়ে জোরালো প্রতিবাদ করে। প্রতিবাদী স্কুল ছাত্র শাহাবুল জানায়, গতকাল শনিবার বিকেলে জুনিয়াদহ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শরিফ’র কাছে শাহাবুল প্রাইভেট পড়তে যায়। এসময় কৌশলে শরীফ মাষ্টার ভাতিজা মোস্তফা কে সংবাদ দিলে ধারালো এবং ভারী অস্ত্র নিয়ে মোস্তফার নেতৃত্বে ৮/৯ জনের সংঘবদ্ধ একটি সন্ত্রাসী দল বিদ্যালয়ের ক্লাশ রুমেই হাতুড়ি পেটা করে শাহাবুল ইসলাম কে। ওই স্কুল ছাত্র কে স্থানীয়রা রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে চিকিৎসা দিয়েছে। এসংবাদ ছড়িয়ে পড়লে হামলার প্রতিবাদে এবং বখাটে সন্ত্রাসীদের বিচারের দাবীতে বিক্ষুদ্ধরা বিদ্যালয়ের প্রধান গেটে তালা ঝুলিয়ে দেয়।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোয়াজ্জম হোসেন’র কাছে মোবাইল ফোনে বিষয়টি নিয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি কৌশলগত ভাবে বিষয়টি এড়িয়ে যান।