পতিতাপল্লীতে পাচারকালে মানিকগঞ্জে আটক ২

Manikganjমানিকগঞ্জ: ভালো চাকরির প্রলোভনে এক নারী পোশাক শ্রমিককে পতিতাপল্লীতে পাচারকালে মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার পাটুরিয়া ফেরিঘাট এলাকা থেকে দুজনকে আটক করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাতে পাটুরিয়া ফেরিঘাট এলাকা থেকে পুলিশ এ দুজনকে আটক করে।

আটককৃতরা হলেন- জয়পুরহাট সদর উপজেলার পাহাড়পুর গ্রামের সুনীল চন্দ্র সূত্রধরের মেয়ে তারা রাণী সূত্রধর (৪৬) এবং জামালপুরের বকশিগঞ্জ উপজেলার মাসজালিয়া গ্রামের আবু সামাদের মেয়ে শারমিন আক্তার (২২)।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পাটুরিয়া নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আবদুল মোক্তাদির জানান, পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার রামনগর গ্রামের মো. লালগাজীর মেয়ে ময়ুরী আক্তার (১৭) ঢাকা মিরপুরে একটি পোশাক তৈরি কারখানায় কাজ করেন। পার্শ্ববর্তী এলাকার একটি বাড়িতে তিনি সহকর্মীদের সঙ্গে ভাড়া থাকেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে তিনি এক বন্ধুর বাড়ি বেড়ানো শেষে বাসায় ফিরছিলেন। পথিমধ্যে তার সঙ্গে তারা রাণী ও শারমিনের পরিচয় হয়।

এক পর্যায়ে ভালো চাকরির প্রলোভনে ময়ুরীকে নিয়ে তারা পদ্মা লাইনের একটি বাসে পাটুরিয়ার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। বাসটি মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এলে ওই দুইজন ময়ুরীকে দৌলতদিয়া পতিতাপল্লীতে নিয়ে দেহ ব্যবসা করানোর কথা বলে।

তাতে রাজি না হয়ে চেঁচামেচি করলে তারা ময়ুরীকে মুখ চেপে ধরে পাটুরিয়া ফেরিঘাট পর্যন্ত নিয়ে আসে। বাস থেকে নামার পর ময়ুরী চিৎকার করলে যানবাহন শ্রমিকরা তাদের ধরে পুলিশে খবর দেয়।

রাত ৯টার দিকে পুলিশ সেখান থেকে ময়ুরীকে উদ্ধার ও ওই দুইজনকে আটক করে নিয়ে আসে। এরপর এ ঘটনায় ময়ুরী মানবপাচার প্রতিরোধ ও দমন আইনে ওই দুইজনকে আসামি করে শিবালয় থানায় মামলা করেন।

শুক্রবার দুপুরে পুলিশ ওই দুইজনকে আদালতে ও ময়ুরিকে সেফ কাস্টডিতে প্রেরণ করেছে বলেও জানান আবদুল মোক্তাদির।