রাষ্ট্র পরিচালনায় ব্যর্থতার দায়ভার নিয়ে যেকোন সময় ক্ষমতা ছাড়ার আশংকা ক্ষমতাসীনদের : আবদুল্লাহ জিয়া

Abdullah-Zia-BNFবিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : গুম, খুন, সন্ত্রাস, নৈরাজ্য, রাষ্ট্রীয় অর্থ আত্মসাৎসহ রাষ্ট্র পরিচালনায় নানাবিধ ব্যর্থতার দায়ভার নিয়ে যেকোন সময় ক্ষমতা ছাড়ার আশংকা রয়েছে ক্ষমতাসীনদের। আর এ আশংকাও করছেন খোদ আওয়ামীলীগের তৃণমুলের নেতাকমীরা। অধিক ভোজনের পর যেমন একজন খাদকের নাভিস্বাসের কারণ হয় তেমনি অবস্থার মধ্যে দিনপার করছে সরকারে থাকা দলগুলো। তারা প্রতিটি মুহুর্তে হিসেব করে পা ফেলে দিন পার করছেন। অনেকে বলেছেন, রাষ্ট্রপরিচালনায় সরকার সর্বকালের সেরা ব্যর্থতার পরিচয় দেবার কারণেই তৃণমুলে এধরণের মানসিক দূবলতার কারণ হয়েছে। এ অবস্থা হতে বের হতেই আওয়ামীলীগ যে কোন সময় হটাৎ ক্ষমতা ছেড়ে রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে আলোচনার টেবিলে বসার প্রকৃয়ায় যাবেন বলে মনে করছেন একাধিক বিশেষজ্ঞ মহল। কথাগলো বলেছেন সদ্য নাম পরিবর্তনকারী বাংলাদেশ ন্যাশনাল এ্যালাইন্স বিএনএ’র প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান ও কুষ্টিয়া জেলা বিএনএ আহবায়ক আবদুল্লাহ জিয়া। তিনি ৫ দিনের কুষ্টিয়া জেলা সফরকালে সরকার দলীয় তুণমুলের নেতৃবৃন্দের সাথে আলাপকালে উপরোক্ত বিষয়গুলি জানতে পেরেছেন তা এক বিবৃতিতে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

তিনি আরো বলেছেন, এ সব পরিস্থিতির কারণেই আওয়ামীলীগের বিভিন্ন নেতাকর্মী নতুন দলে আশ্রয় নেয়ার জন্য বিভিন্ন দলে তলে তলে যোগাযোগও অব্যহত রেখে চলেছেন। এক্ষেত্রে সাবেক দুইবারের মন্ত্রী ও মানবাধিকার সম্মত সমাজ গড়ার রুপকার বিশিস্ট আইনবিদ ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা কর্তৃক ঘোষিত বাংলাদেশ ন্যাশনাল এ্যালাইন্স-বিএনএ তাদের প্রথম ও প্রধান পছন্দ হয়ে দাড়িয়েছে।

রাজনীতির এ পরাবাস্তব পর্যায়ে বিএনএ কিভাবে রাজনীতির এক সাগর পাড়ি দেবে এমন প্রশ্নে বিশিষ্ট লেখক ও কলামিষ্ট জাতীয় বিশেষ লেখায় মানবাধিকার স্বর্ণপদক ২০১১’র পুরষ্কারে ভূষিত ব্যক্তিত্ব বিএনএ’র এ শীর্ষনেতা আরো বলেন,  দেশে সরকার দলীয় লোকদের সীমাহীন অর্থলোলুপতার আগ্রাসনে রাষ্ট্রের শতকারে ৫০ ভাগ মানুষ মধ্যবিত্ত্ব থেকে কনর্ভাট হয়ে অতি নি¤œ দারিদ্রতায় পৌছে গেছে। মানবাধিকার সম্মত সমাজ ব্যবস্থা ভঙ্গুর হবার ফলে মানুষ সুবিচারের আশায় বিভিন্ন উচ্চপদস্থ সরকারী আমলা ও নেতানেত্রীদের পিছে টাকা দিয়েও কোন সুবিচার পাচ্ছে না। আর এ সংগত কারণেই দেশের সার্বজনীন শান্তি কাঠামো ভেঙ্গে পড়েছে। বিএনএ ৩ টি মুলনীতিকে দেশের সবার মাঝে ছড়িয়ে দিয়ে জনগণের জন্য এসব সমস্যা সমাধানে কাজ কওে যাবার এবং আগামীতে একক সংখ্যাগরিষ্টভাবে ক্ষমতায় যাবার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করছে এবং এ উদ্দেশ্যে সমাজের সর্বস্তরের রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গকে ঐক্যবদ্ধ করে সে লক্ষ্যে কাজ করে চলেছে।