মনপুরার নৌরুটে যাত্রীবাহি সী-ট্রাকটি ফের বিকল

Monpura tarar pic-2মোঃ ছালাহউদ্দিন,মনপুরা প্রতিনিধি :
ভোলা জেলার বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা মনপুরা-তজুমদ্দিন নৌরুটের যাত্রীবাহী সীট্রাকটি যান্ত্রিক ত্রুটির কারনে ফের বিকল হয়ে বন্ধ রয়েছে। ফলে শত শত যাত্রী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ছোট ট্রলার দিয়ে বিশাল মেঘনা নদী পাড়ি দেয়। কালবৈশাখী ঝড়ের কবলে পড়ে যে কোন সময় অনাকাঙ্খিত নৌ দুর্ঘটনার ঘটার সম্ভবনা রয়েছে। মনপুরার মানুষের সাথে অন্য উপজেলা বা জেলার সাথে নৌ পথের যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম সীট্রাক। প্রতিদিন শতশত যাত্রী সিট্রাক ঘাটে এসে ফিরে যাচ্ছে।

খোজ নিয়ে জানা যায়,গত এপ্রিল মাসে যান্ত্রিক ত্রুটির কারনে সিট্রাকটি ১৭দিন বন্ধ থাকার পর ২২এপ্রিল নৌ-রুটে সিট্রাকটি চালু হয়। ১৪দিন সিট্রাকটি চলার পর ফের যান্ত্রিক ত্রুটির কারনে বন্ধ হয়ে যায়। ৫মে সকাল ১০টায় সীট্রাকটি হাজির হাট ঘাট হতে ছেড়ে তজুমদ্দিন উপজেলার উদ্দেশ্যে যাত্রা করলে মেঘনার মাঝে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয়। যান্ত্রিক ত্রুটির কারনে সিট্রাকটি সম্পুর্ন বিকল থাকায় নৌপথের এক মাত্র মাধ্যম সিট্রাকটি বন্ধ রয়েছে। প্রায় সিট্রাক বন্ধ থাকায় যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহতে হচ্ছে। বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষের গাফলতির কারনে বার বার এই রুটে সীট্রাকটি যান্ত্রিক ত্রুটির কারনে বিকল হয়ে পড়ছে। যাত্রীদের অভিযোগ টেন্ডার পাওয়া মালিক পক্ষ নিজেদের সুবিধার জন্য এই রুটে অত্যাধুনিক সিট্রাক বাদ দিয়ে বহু পুরানো সিট্রাক বরাদ্ধ করে নিয়ে আসে। সিট্রাকটি বন্ধ রেখে ট্রলার মালিকের সাথে অর্থের বিনিময়ে মেঘনায় যাত্রী পারাপরের জন্য ট্রলার চালানোর সহযোগীতা করেন। বিআইডব্লিউটিএ কিছু কর্মকর্তার যোগ সাজসে একক আধিপত্য বিস্তার করে যাচ্ছেন এসব মালিক পক্ষ। সিট্রাক টেন্ডার পাওয়া এস.কে ট্রের্ডাসের ঠিকাদার মোঃ ভুট্রো বলেন,যান্ত্রিক ত্রুটির কারনে সিট্রাক বন্ধ রয়েছে। মেশিনটি বর্তমানে সম্পুর্ন অকেজো। বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষের বরাবর দরখাস্ত করেছি। চেয়ারম্যান দেশে না থাকার কারনে মেশিনের নতুন যন্ত্রাংশ ঢাকা থেকে এখনও আনতে পারিনি। নতুন যন্ত্রাংশ রবিবারের মধ্যে আনান পর সিট্রাকের ইঞ্জিনের কাজ করে চালু করা হবে। সিট্রাক মাষ্টার আঃ জলিল বলেন,এস.টি শহীদ শেখ জামাল সিট্রাকটির ইঞ্জিন নতুন করে প্রতিস্থাপন করা না হলে বার বার যান্ত্রিক ত্রুটির কারনে সিট্রাক বিকল হয়ে যাওয়ার আশংঙ্খা করছেন। দ্রুত মেশিনের কাজ করে যাত্রীবাহী সিট্রাক চালু করবেন বলে তিনি জানান। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবদুল্লাহ আল বাকী বলেন,সিট্রাক কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ করেছি। দ্রুত মেশিনের কাজ শেষ করে সিট্রাক চালু করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন বলে তিনি জানান।