দেশকে সন্ত্রাসী রাষ্ট্র বানানোর ষড়যন্ত্র চলছে : জামায়াত

37154_BJI-Logoবেপরোয়াভাবে হত্যা, সন্ত্রাস, গুম, খুন ও অপহরণ ঘটিয়ে পরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশকে ব্যর্থ এবং অকার্যকর সন্ত্রাসী রাষ্ট্র বানানোর ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে দেশবাসীকে সোচ্চার হওয়ার আহবান জানিয়েছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারী জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান। শুক্রবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, সরকারের প্রত্যক্ষ মদদে বাংলাদেশে অবাধে হত্যা, সন্ত্রাস, অপহরণ, খুন, গুম ও বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড চলছে। সরকার দলীয় ক্যাডার ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে ব্যবহার করে নির্বিচারে রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড চালাচ্ছে। হত্যা, সন্ত্রাস, অপহরণ ও গুমের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের বিচার হচ্ছে না। বরং সরকার তাদের নানাভাবে পুরস্কৃত করছে। শুধু বিরোধী দল করার কারণে সরকার জামায়াত-শিবিরসহ ১৯ দলীয় জোটের নেতা-কর্মীদের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দিয়ে গ্রেফতার করিয়ে গুলি করে হত্যা করছে। সরকার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে নিশ্চিহ্ন করার জন্য রাষ্ট্রের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে ঘাতক বাহিনী হিসেবে ব্যবহার করছে। বিরোধী দলের রাজনীতি করাটাই যেন বাংলাদেশে সবচাইতে বড় অপরাধ। রাজনৈতিক সভা-সমাবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না। সরকারের ইতিবাচক সমালোচনা বরদাস্ত করা হচ্ছে না। সংবাদপত্র ও মিডিয়ার স্বাধীনতা হরণ করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ভোটাধিকার হরণ এবং গণতন্ত্র ও বিচার ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়ে সরকার বাংলাদেশকে ব্যর্থ ও তাঁবেদার রাষ্ট্র বানানোর ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নের অপচেষ্টা চালাচ্ছে। এ ষড়যন্ত্র কিছুতেই বাস্তবায়ন হতে দেয়া যায় না।

ডা. শফিকুর বলেন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সরাসরি সম্পৃক্ততায় নারায়ণগঞ্জে ৭ জনকে অপহরণ করে তাদের লাশ নদীতে ফেলে দেয়ার ঘটনা দেশ-বিদেশের মানুষকে প্রচন্ডভাবে নাড়া দিয়েছে। সরকারের কোন কোন ব্যক্তি ও প্রশাসনের সরাসরি জড়িত থাকার ঘটনা গণমাধ্যমে প্রচারিত হচ্ছে। এ ধরনের লোমহর্ষক ঘটনার মাধ্যমে এলিট ফোর্স র‌্যাব, পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস উঠে গিয়েছে। এ অবস্থা রাষ্ট্রীয় কাঠামোকে ভীষণভাবে দুর্বল করে দেয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। সম্পূর্ণ দলীয় স্বার্থের কারণে কোন অবস্থাতেই রাষ্ট্রকে ব্যর্থ, অকার্যকর করার চক্রান্ত বাস্তবায়ন করতে দেয়া যায় না। রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত রেখে রাষ্ট্রের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে পেশাদারিত্বের সাথে তাদের দায়িত্ব পালন করতে না দেয়ার কারণে বর্তমান বিপর্যয়কর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। কাজেই সরকারের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে দেশের আর সর্বনাশ করবেন না। এখনই এসব বন্ধ করুন। বিজ্ঞপ্তি।