পার্বত্য চট্টগ্রামে ‘র‌্যাব’ মোতায়েনের সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবিতে খাগড়াছড়ি মানববন্ধন

OLYMPUS DIGITAL CAMERAখাগড়াছড়ি প্রতিনিধি :
পার্বত্য চট্টগ্রামে র‌্যাব মোতায়েনের সরকারি সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবিতে খাগড়াছড়ি ও রাঙামাটির বিভিন্ন জায়গায় একযোগে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে ইউপিডিএফ সমর্থিত গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ও হিল উইমেন্স ফেডারেশন ।

বুধবার সকাল ১০টায় খাগড়াছড়ি জেলা সদরের চেঙ্গী স্কোয়ার, পানছড়ি, মহালছড়ি, দীঘিনালা, গুইমারা, মানিকছড়ি ও লক্ষ্মীছড়ি এবং রাঙামাটি জেলার কুদুকছড়ি, কাউখালী, নান্যাচর, বাঘাইছড়ি ও সাজেকে এক যোগে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।

মানববন্ধনের বক্তারা বলেন,‘আইন শৃংখলার নামে পাহাড়ে রাষ্ট্রীয় সংস্থার ক্রস ফায়ার-চাঁদাবাজি-অপহরণ-গ্রেফতার বাণিজ্য সম্প্রসারণের বিরুদ্ধে পাহাড়ি-বাঙালি এক হও’ শ্লোগানে বুধবার সকাল ১০টায় জেলা শহরের চেঙ্গী স্কোয়ারে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সভাপতি বিপুল চাকমার সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন ইউনাইটেড পিপল্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ)-এর খাগড়াছড়ি  সদর উপজেলা ইউনিটের সংগঠক চরণসিং তঞ্চঙ্গ্যা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অংগ্য মারমা, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার দপ্তর সম্পাদক বিজয় চাকমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সভাপতি মিশুক চাকমা ও যুব ফোরামের খাগড়াছড়ি উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আলোবরণ চাকমা প্রমুখ।

মানববন্ধনে ‘র‌্যাব মোতায়েন=ক্রস ফায়ার-অপহরণ বাণিজ্য সম্প্রসারণ’; ‘রাষ্ট্রীয় খুনী সংস্থা র‌্যাব বাতিল কর’ ; র‌্যাব মোতায়েন, ‘পার্বত্য চুক্তি’ বাস্তবায়ন???’ ইত্যাদি শ্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড গলায় ঝুলিয়ে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রী সহ সদর উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ৩ শতাধিক নারী-পুরুষ অংশগ্রহণ করেন।

ঘন্টাব্যাপী অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, সারা দেশে র‌্যাব একটি খুনী বাহিনীতে পরিণত হয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রামের বিপুল সংখ্যক সেনা মোতায়েন থাকা সত্ত্বেও সরকার এই রাষ্ট্রীয় খুনী বাহিনীকে পার্বত্য চট্টগ্রামে মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে এই খুনী বাহিনীকে মোতায়েন করা হলে সমতলের ন্যায় এখানেও  খুন-গুম-ক্রসফায়ার ও নিপীড়ন-নির্যাতনের মাত্রা আরো বহুগুণে বৃদ্ধি পাবে। তাই র‌্যাব মোতায়েনের সরকারী সিদ্ধান্ত পার্বত্য চট্টগ্রামের জনগণের জন্য অশনি সংকেত হিসেবে দেখা দিয়েছে।

বক্তারা আরো বলেন, সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জে এক প্যানেল মেয়রসহ ৭ জনকে খুনের ঘটনায় র‌্যাব জড়িত রয়েছে। এছাড়া চট্টগ্রামে মাজার লুট থেকে শুরু করে প্রতিনিয়ত যে খুন, গুম, অপহরণ ও ক্রসফায়ারের নামে বিনা বিচারে মানুষ হত্যার ঘটনা ঘটছে এসবে সাথে র‌্যাব প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত রয়েছে। যার ফলে র‌্যাব এখন রাষ্ট্রীয় খুনী সংস্থায় পরিণত হয়েছে। ইতমধ্যে বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় র‌্যাব বিলুপ্ত করারও প্রস্তাব দিয়েছে।

বক্তারা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে পাহাড়িদের ন্যায্য আন্দোলনকে বলপূর্বক দমনের লক্ষ্যে সরকার এখানে র‌্যাব মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সরকারের এই সিদ্ধান্ত পাহাড়ি জনগণ কিছুতেই মেনে নেবে না। এর বিরুদ্ধে সকলকে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান বক্তারা।

বক্তারা অবিলম্বে পার্বত্য চট্টগ্রামে র‌্যাব মোতায়েনের সরকারি সিদ্ধান্ত বাতিল, নারায়ণগঞ্জে ৭ খুনের ঘটনায় জড়িত র‌্যাব সদস্য ও কর্মকর্তার বিচার, পার্বত্য চট্টগ্রামসহ সারা দেশে খুন-গুম,ক্রস ফায়ারের নামে বিনা বিচারে মানুষ হত্যা ও নিপীড়ন-নির্যাতন বন্ধের দাবি জানিয়েছেন। এছাড়াও খাগড়াছড়ির ও রাঙ্গামাটির বিভিন্ন উপজেলায় এক যোগে এ কর্মসূচী পালিত হয়েছে।