দেরিতে রেড এ্যালার্ট জারী, পাসপোর্ট যাত্রীদের ভোগান্তি

RED ALARTমোঃআনিছুর রহামান,বেনাপোল,(যশোর) সংবাদদতাঃ নারানগঞ্জের বহুল আলোচিত ৭ হত্যাকান্ডের আসামিরা যাতে দেশত্যাগ করতে না পারে তার জন্য বেনাপোল সহ সারাদেশের সীমান্ত পয়েন্টে সতর্কতা জারি করায় বিপাকে পড়েছে ভারতগামী সাধারন যাত্রীরা।

মঙ্গলবার সকালে বেনাপোল চেকপোষ্ট ইমিগ্রেশনে দেখা গেছে, যাত্রীরা দির্ঘ্য সময় ধরে লাইনে দাঁড়িয়ে তাদের পাসপোর্টের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করছে। এতে করে দির্ঘ্য সময় লাইনে াঁড়িয়ে বৃদ্ধ ও রোগিরা নাজেহাল হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

ঢাকা থেকে ভারতগামী পাসেপোর্ট যাত্রী সাধন কুমার ঘোস জানান, তিনি ভারতে চিকিৎসা নিতে যাচ্ছেন। সকালে বেনাপোল এসে নেমে প্রায় দুই ঘন্টা লাইনে দাঁড়িযে পাসপোর্টের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করেছেন। সকল যাত্রীদের পাসপোর্টের সাথে ছবি মিলিয়ে ইমিগ্রেশন অফিসাররা অত্যান্ত সতর্কতার সাথে কাজ করায় সময় বেশি লাগছে বলে জানান, ইমিগ্রেশনের কর্মকর্তরা।

এদিকে বেনাপোল ইমিগ্রেশন চেকপোষ্টে নারনগঞ্জের সেভেন মার্ডারের তালিকাভুক্ত আসামিারা যাতে ভারতে পালিয়ে যেতে না পারে সে জন্য ইমিগ্রেশন ছাড়া ও চেকপোষ্টের মেইনগেটে পুলিশের পাসপোটৃ দেখা গেটে নুর হোসেন , ইয়াসিন, আনোয়ার , আমিরুল ইসলাম, হাসনাত , ইকবাল হোসেন এর ছবি টানিয়ে রেখেছে। তবে বেনাপোলের সাধারন জনগনক মন্তব্য করতে শোনা গেছে চেকপোষ্টে দেরিতে রেড এলার্ড জারী করা হযেছে। নুর হোসেন ও তার দলবল পালিয়ে গেছে কি না সন্দেহ রয়েছে। দেরিতে রেড এ্যালার্ড জারী করে সাধারন যাত্রীদের ভোগান্তির সীমা নাই।

এদিকে বাংলাদেশে দির্ঘ্যসময় অতিবাহিত করার পর ও ভারতে ঢোকার সময় নোম্যান্স ল্যান্ডে ভারতের লোকসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএসএফ ও ইমিগ্রেশন পুলিশ যাত্রিদের পাসপোর্টৃ নিয়ে যাচাই বাছাই করছে দির্ঘ্য সময় ধরে।

যশোর ২৬ বিজিবি লে. কর্নেল মতিউর রহমান জানান, স্বরাষ্ট্র ্র মন্ত্রনালযের নির্দেশে সীমান্তের প্রতিটি পযেন্টে রেড  এ্যালার্ট সহ সতর্কৃতা জারী করা হয়েছে।বিশেষ করে ভারতের লোকসভা নির্বাচনের কারনে বিজিবির প্রতিটি সদস্যকে বিশিষ সতর্ক অবস্থায় রাখা হয়েছে।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন ওসি জাহাঙ্গীর আলম জানান, নারানগঞ্জের সেভেন মার্ডারের আসামির ব্যাপারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় থেকে চিঠি আসার পর ইমিগ্রেশন পুলিশকে সর্বোচ্চ সতর্ক রাখা হয়েছে।

বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি অপুর্ব হাসান জানান, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের চিঠির পর সীমান্তে সতর্কবস্থা নেয়া হয়েছে। যাতে বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে পালিয়ে যেতে না পারে কোন আসামি।