হত্যা-গুম সরকারের জন্যই বুমেরাং হবে : ন্যাপ

Nap C Eদেশে এখন গণতন্ত্রের নামে চলছে ফ্যাসীবাদ আর শাসনের নামে চলছে অপশাসন। সেই সঙ্গে চলছে হত্যা-গুম আর অপহরনের মহোৎসব। চলমান পরিস্থিতিতে দেশের জনগন আতংকিত হয়ে উঠছে। আর সরকার রাষ্ট্রের আইনশৃঙ্খরা রক্ষায় নিজেদের ব্যর্থতাকে আড়াল করতে বিরোধী দলের উপর দোষ চাপানোর অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। অপহরন-হত্যা-গুম সরকারের জন্যই বুমেরাং হবে বলে অভিমত প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ ন্যাপ নেতৃবৃন্দ।
আজ মঙ্গলবার সকালে নয়াপল্টনস্থ যাদু মিয়া মিলনায়তনে বাংলাদেশ যুব ন্যাপ‘র কর্মীসভায় যুব ন্যাপ আহ্বায়ক সৈয়দ শাহজাহান সাজু‘র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গাণি, বক্তব্য রাখেন ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, যুগ্ম মহাসচিব স্বপন কুমার সাহা, মোড়ল আমজাদ হোসেন, নগর যুগ্ম সম্পাদক মোঃ শামিম ভুইয়া, জাতীয় ছাত্রদল সভাপতি এম.এন. শাওন সাদেকী, যুব ন্যাপ যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ মশিউর রহমান, বাহাদুর শামিম আহমেদ পিন্টু, আবদুল মান্নান, আমিনা খাতুন মনি প্রমুখ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেবেল রহমান গাণি বলেছেন, আজ দেশে আইনের শাসন প্রশ্নবিদ্ধ। আরএদশে আইনের শাসন না থাকলে হত্যা-গুম-খুন অব্যাহত থাকবে। এই অপরাজনীতি বন্ধে দেশপ্রেমিক জনতাকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় দেশপ্রেমিক সরকার প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। একটি স্বাধীন দেশে এই ধরনের অরাজকতা চলতে পারে না। ক্ষমতায় টিকে থাকা আর ক্ষমতার যাওয়ার লড়াইয়ে সাধারন জনগনের জীবন বিপদাপন্ন করা কোন শক্তির কাছে দেশবাসী মাথা নত করতে পারে না।
এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেছেন, আজ বাংলাদেশের চলমান অস্থিরতা অর্থনীতি থেকে শুরু করে সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে। একটা দেশে অব্যহত খুন-গুম-অপহরন চললে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা বেঙ্গে পড়তে পারে। তিনি বলেন, এভাবে চলতে পারে না। দেশের জনগনের নিরাপপত্তা নিশ্চিত করা শাসকগোষ্টির দায়িত্ব। অপরের কাঁধে দোষ চাপিয়ে দায় থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে না। দেশের স্বার্থে-গণতন্ত্রের স্বার্থে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।
স্বপন কুমার সাহা বলেছেন, যে সরকার দেশের মানুষের জানমালের নিরাপত্তা দিতে পারে না, সেই সরকারের প্রয়োজন দেশবাসীর নেই। হত্যা-গুম-অপহরনের বিরুদ্ধে সকলকে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।
সভাপতির বক্তব্যে সৈয়দ শাহজাহান সাজু বলেছেন, রাষ্ট্রের দায়িত্ব নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চি করা। এ ক্ষেত্রে সরকার ব্যর্থ হয়েছে। জনগন সরকারের প্রতি অতিষ্ঠ। জনগন হত্যা-গুম-অপহরন বন্ধে আর কোন আশ্বাস শুনতে চায় না, চায় কার্যকর পদক্ষেপ।