পার্বতীপুরে ভুল চিকিৎসায় শিশু মৃত্যুর অভিযোগ

dinajpur-14-150x150বদরুদ্দোজা বুলু, পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ
পার্বতীপুরে ভুল চিকিৎসায় সোনাকসি নামে ছয় মাসের এক শিশু কন্যার মৃত্যুবরণ করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। শিশুটি পার্বতীপুর শহরের খোলাহাটি রোডের সঞ্জিব ঘোষের কন্যা। এ ঘটনায় বিক্ষুদ্ধ লোকজন গত রবিবার সন্ধ্যায় অভিযুক্ত ডাক্তার এনামুলকে শহরের জননী ফার্মেসীতে তার চেম্বারে আটক করে রাখে। পরে পার্বতীপুর মডেল থানার একদল পুলিশ গিয়ে ডাক্তার এনামুলকে আটক করে থানায় নিয়ে আসলেও প্রভাবশালী একটি মহলের চাপে গভীর রাতে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। ডাক্তার এনামুল হক নীলফামারী সদর হাসপাতালের কনসালটেন্ট চিকিৎসক।

সন্তান হারিয়ে পাগলিনী মা স্বপ্না কাঁদতে কাঁদতে জানান, জ¦র ও পাতলা পায়খানায় আক্রান্ত হওয়ায় সোনাকসিকে গত ২৫ এপ্রিল রাতে নীলফামারী জেলার সৈয়দপুরে ডাক্তার এনামুল হকের চেম্বারে নেওয়া হয়। রাত সাড়ে ৯টার দিকে ডাক্তার এনামুল শিশুটিকে দেখার পর একটি ইনজেকশন পুশ করে ব্যবস্থাপত্র লিখে দেয়। ডাক্তারের চেম্বার থেকে বাহির হয়ে বাড়ি আসার পথে শিশুটি চেতনা হারিয়ে ফেলে। এ অবস্থায় রাত সাড়ে ১১টার দিকে শিশুটিকে পার্বতীপুরে বিদেশী মিশনারিদের দ্বারা পরিচালিত ১৫০ শয্যার ল্যাম্ব হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষনা করে।

এদিকে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ডাক্তার এনামুল পার্বতীপুর শহরে জননী ফার্মেসীতে তার চেম্বারে রোগি দেখতে আসলে গত রবিবার সন্ধ্যায় শিশুটির পরিবারের লোকজন ও এলাকাবাসী লাঠিসোটা নিয়ে ওই চেম্বার ঘিরে ফেলে। বিক্ষুদ্ধ লোকজন ডাক্তার এনামুলকে চেম্বারে আটকে রেখে সেখানে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে থাকে। খবর পেয়ে পার্বতীপুর মডেল থানার একদল পুলিশ গিয়ে ডাক্তার এনামুলের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। পরে একটি প্রভাবশালী মহলের চাপে গভীর রাতে ডাক্তার এনামুলকে থানা থেকে ছেড়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ উঠেছে। শিশুটির পিতা সঞ্জিব ঘোষ ও মা স্বপ্না ডাক্তার এনামুলের বিচার দাবি করেছেন।

এ ব্যাপারে পার্বতীপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন মন্ডল জানান- জনরোষ থেকে বাঁচাতে ডাক্তার এনামুলকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছিল। কোনো চাপে নয় শিশুটির পরিবার থানায় লিখিত অভিযোগ না দেওয়ায় তাকে আটক করা হয়নি। লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে ওসি জানান।