যশোরে মামলার ফাঁদে দিশেহারা বিএনপি’র দশ সহস্রাধিক নেতাকর্মী

jessoreমো: মনোয়ার হোসেন, যশোর প্রতিনিধি :

দশম জাতীয় সংসদ ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ঘিরে যশোরে প্রায় ৪’শ মামলার ফাঁদে হয়রানি, চাঁদাবাজিতে দিশেহারা দশ সহস্রাধিক বিএনপি নেতাকর্মীরা। ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মী ও পুলিশি হয়রানিতে বাড়ি ঘরে থাকতে পারছে না বিএনপির নেতাকর্মীরা। বিএনপির ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, পৌর কাউন্সিলরসহ উপজেলা, পৌর, ইউনিয়ন ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাকর্মীদের টার্গেট করে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। একের পর এক মিথ্যা মামলায় নাজেহাল হচ্ছেন তারা।
সোমবার যশোর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু দাবি করেন, রাজনৈতিক কর্মসূচী থেকে বিএনপিকে দূরে রাখতে পরিকল্পিতভাবে একের পর মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে। মিথ্যা মামলায় হয়রানির বন্ধের দাবিতে ২৩ এপ্রিল পুলিশ সুপারের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হবে। এরপর ৩০ এপ্রিল টাউন হল ময়দানে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এসব কর্মসূচীর পরও মিথ্যা মামলা ও হয়রানি বন্ধ না হলে হরতালের মত কঠোর কর্মসূচী দেয়া হবে।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বিগত সংসদ ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ও নিবাচন পরবর্তী সময়ে যশোরের ৮ উপজেলায় কমপক্ষে ৩’শ ৬৮টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এতে নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাতনামা ১০ সহস্রাধিক নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে। অজ্ঞাতনামা আসামির নামে পুলিশ অর্থ বাণিজ্যে নেমেছে।
বিএনপির তথ্য মতে, জেলায় রেকর্ড পরিমাণ মিথ্যা মামলা দায়ের হয়েছে মণিরামপুর উপজেলায় ১৬৮টি। এসব মামলায় আসামি হয়েছেন বিএনপির ৪ সহস্রাধিক নেতাকর্মী। সদর উপজেলা ৬৫টি মামলায় ৩ সহস্রাধিক আসামি হয়েছেন। এছাড়া শার্শা ৮টি, ঝিকরগাছায় ২১টি, বাঘারপাড়ায় ৫২টি, চৌগাছায় ৩০টি, কেশবপুরে ৬টি ও অভয়নগরে ১৮টি মামলা হয়েছে। মিথ্যা মামলা ও হয়রানিতে বিএনপির নেতাকর্মীরা এলাকা ছাড়া হয়েছেন।
জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু বলেন, ঝিকরগাছার গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নের নেতাকর্মীদের বাড়িতে লুটপাট চালানো হয়েছে। সেখানকার নেতাকর্মীরা এলাকা ছাড়া হয়েছেন। দলীয় নেতাকর্মীদের সাহস ভেঙে দেয়ার জন্য এমন হামলা ও মামলা করছে ক্ষমতাসীনরা।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামসুল হুদা, সহ-সভাপতি রফিকুর রহমান তোতন, আব্দুস সবুর মন্ডল, সাংগঠনিক সম্পদক দেলোয়ার হোসেন খোকন, সদর উপজেলা বিএনপি প্রমুখ