ঢাকা-ওয়াশিংটন নিরাপত্তা সংলাপ শুরু

20206_dhakaবিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : ওয়াশিংটনের সঙ্গে তৃতীয় দফায় নিরাপত্তা সংলাপে বসেছেন ঢাকার কর্মকর্তারা। আজ সকাল সাড়ে ৯টায় রাজধানীর ইস্কাটনস্থ বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ (বিজ) মিলনায়তনে দু’দেশের নিরাপত্তা-সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের মধ্যে এ সংলাপ শুরু হয়। একাধিক কূটনৈতিক সূত্র মতে, সংলাপে যুক্তরাষ্ট্রের ২৭ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব  দেবেন দেশটির রাজনৈতিক ও সামরিক ব্যুরোর প্রধান ভারপ্রাপ্ত এসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি টমাস কেলি। তার বিপরীতে পররাষ্ট্র, স্বরাষ্ট্র, প্রতিরক্ষা, খাদ্য ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় এবং সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত বাংলাদেশের ২৭ সদস্যের অধিক প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেবেন পররাষ্ট্র দপ্তরে সচিব (দ্বিপক্ষীয়) মুস্তাফা কামাল। ২০১২ সালের এপ্রিলে দেশ দু’টির মধ্যে প্রথম নিরাপত্তা সংলাপ ইস্কাটনের বিস মিলনায়তনেই অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এর ধারাবাহিকতায় গত বছর এপ্রিলে ওয়াশিংটনে দ্বিতীয় দফা সংলাপ করতে যান ঢাকার কর্মকর্তারা। পররাষ্ট্র দপ্তরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন আগের দু’বছরের ধারাবাহিকতায় এবারের সংলাপ হলেও পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে এজেন্ডা, ফোকাসে বেশ নতুনত্ব এসেছে। তবে অবশ্যই আগের আলোচনার ধারাবাহিতা থাকবে। সামরিক খাতে দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা বৃদ্ধি, জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় যৌথ এফোর্ট, সমুদ্র নিরাপত্তা, সম্পদ আহরণ ও এর যথাযথ সংরক্ষণ, জলদস্যুতা প্রতিরোধ, মানব পাচার রোধ ও দুর্যোগ মোকাবিলায় সহযোগিতায় যুক্তরাষ্ট্রকে আরও ঘনিষ্ঠভাবে পাশে চায় ঢাকা। তবে এর বাইরেও আঞ্চলিক কয়েকটি বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান জানতে চাইবে বাংলাদেশ। আঞ্চলিক ভূ-রাজনৈতিক কারণে মিয়ানমারের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তা সহযোগিতার বিষয়টিও আলোচনায় ওঠবে। একই সঙ্গে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক ও সহযোগিতার বিষয়েও ওয়াশিংটনের জানার আগ্রহ  থাকতে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। পররাষ্ট্র মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী বা সচিব সরাসরি ওই সংলাপের অংশ না হওয়ায় সংলাপের জন্য দুদিন আগে ঢাকায় আসা মার্কিন কর্মকর্তারা আলাদা আলাদাভাবে মন্ত্রী ও সচিবের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান ও আগ্রহের বিষয়গুলো তুলে ধরেছেন। রোববার বিকালে প্রতিনিধি দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্যরা বৈঠক করেন পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হকের সঙ্গে। প্রায় ঘণ্টাব্যাপী ওই বৈঠক শেষে প্রতিনিধি দলের সদস্য মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক উপ-সহকারী মন্ত্রী অতুল কেশাব সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার  আলমের সঙ্গে। বৈঠক শেষে বেরিয়ে যাওয়ার মুহূর্তে কেশাব সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন। জানান, নিরাপত্তা সংলাপে অংশ নিতেই তার ঢাকায় আসা। দু’দেশের নিরাপত্তা নিয়ে মতবিনিময়ে ‘সংলাপ একটি কার্যকর ফোরাম’ এমন অভিমত ব্যক্ত করে অতুল বলেন, সেখানে নিরাপত্তা বিষয়ক অভিন্ন স্বার্থসংশ্লিষ্ট সব ইস্যুই আলোচনা হয়। তার বিদায়ের পর প্রতিমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের সঙ্গে নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন ইস্যুতে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে। সার্বিক সম্পর্ক কিভাবে এগিয়ে নেয়া যায়- তার একটি ধারণা মার্কিন কর্মকর্তারা দিয়েছেন বলে জানান প্রতিমন্ত্রী। নিরাপত্তা সংলাপের বিষয়ে সম্প্রতি মানবজমিনের সঙ্গে আলাপে পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক বলেন, এরই মধ্যে দুদফা সংলাপ হয়েছে। ফলে পারস্পরিক সহযোগিতা অনেক বেড়েছে। বিশেষ করে তথ্য আদান-প্রদান, সামরিক বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ বৃদ্ধি পেয়েছে। নিরাপত্তা সংলাপ শুরুর আগে বিভিন্ন ক্ষেত্রে যে ধরনের সহযোগিতা যুক্তরাষ্ট্র থেকে পাওয়া যেত ফোরাম গঠনের পর সেটি অনেক বেড়েছে। বিশেষ করে  সামরিক বিভিন্ন প্রশিক্ষণের পরিধি ও মান বৃদ্ধি পেয়েছে। আগামীতে এটি আরও বাড়বে বলে আশা পররাষ্ট্র সচিবের। এদিকে সংলাপের পর আলোচনার বিষয়ে গণমাধ্যমকে অবহিত করতে যুক্তরাষ্ট্র  দূতাবাসের তরফে আজ বিকালে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে।