বৃটেন জবাবদিহিমূলক গণতন্ত্র দেখতে চায়

20076_gbsnবিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : বাংলাদেশে নিযুক্ত বৃটিশ হাইকমিশনার রবার্ট গিবসন সোমবার সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন। নগরভবনে সকাল সাড়ে ১০টায় এই মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় গিবসন বলেন, বৃটেন বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন অংশীদার। দিনে দিনে এ সম্পর্ক আরও গভীর হচ্ছে। সিলেটের সঙ্গে যুক্তরাজ্যের সম্পর্ক কিভাবে আরও গভীর করা যায় তারা সে প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন। রবার্ট গিবসন বলেন, আরিফুল হক চৌধুরী মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর তিনি গতকাল প্রথম সিলেটে এসেছেন। বৃটেনের সঙ্গে সিলেটের ঐতিহাসিক সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখানকার বিপুল সংখ্যক মানুষ যুক্তরাজ্যে বসবাস করেন। এজন্য বৃটিশ হাইকমিশনের কাছে সিলেটের গুরুত্ব অত্যধিক। সিলেটে প্রবাসীদের সমস্যা নিয়ে আলোচনা করতে তিনি সিলেট সফর করছেন বলে জানান হাইকমিশনার। জবাবে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, প্রবাসীদের বিষয়ে সিটি কর্পোরেশনে খুবই আন্তরিক। প্রবাসীদের সমস্যাবলী নিরসনে সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে শিগগিরই একটি ওয়েবসাইট খোলা হবে। প্রবাসীরা তাদের জমিজমা দখল সংক্রান্ত অভিযোগ ওয়েবসাইটে জানাতে পারবেন। এছাড়াও  প্রবাসীরা যাতে এখানে নির্বিঘেœ বিনিয়োগ করতে পারেন-সে ব্যাপারে সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ সব ধরণের সহযোগিতার আশ্বাস দেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। তিনি সিলেট সিটিতে লন্ডন সিটির মতো সিকিউরিটি ক্যামেরা সংযোজন করাসহ ট্রাফিক ব্যবস্থা আধুনিকায়নের জন্য যুক্তরাজ্য সরকারের সহায়তা কামনা করেন। এসময় বৃটিশ হাই কমিশনের পলিটিক্যাল এনালিস্ট এজাজুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। সিটি কর্পোরেশনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব, সচিব মমতাজ বেগম, ভারপ্রাপ্ত চিফ ইঞ্জিনিয়ার নূর আজিজুর রহমান, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: সুধাময় মজুমদার। এদিকে আরিফুল হক চৌধুরীর সাথে সাক্ষাতের পর নগরভবনে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে রবার্ট গিবসন বলেন, বৃটেন এদেশে জবাবদিহিমূলক গণতন্ত্র দেখতে চায়। এজন্য স্বাধীন মিডিয়া, পার্লামেন্টে শক্তিশালী বিরোধী দল এবং প্রাতিষ্ঠানিক স্বাধীনতা খুবই জরুরি।