ভোজন বিলাসী শেতাঙ্গ কাষ্টমার টেকওয়ে কালেকশ করতে হেলিকাপ্টার নিয়ে মান্সফিল্ডের মিন্ট রেষ্টুরেন্টে

manchfieldমতিয়ার চৌধুরী,লন্ডন : জীবনে একবার ইন্ডিয়ান কারীর স্বাদ গ্রহন করলে সহজে ভোলা যায়না, বারবার  ঘুরে আসতে হয়, এমননি ভোজন বিলাসী শ্বেতাঙ্গ কাষ্টমার মানন্সফিল্ডের মিন্ট রেষ্টুরেন্টের শেফের রান্না করা কারী খেয়ে আসক্ত হয়ে পড়েছেন ইন্ডিয়ান খাদ্যের প্রতি। কয়েক মাস পূর্বে তিনি ডনকাষ্টার থেকে বেড়াতে এসছিলেন মান্সফিল্ডে সেখানে জীবনে প্রথম বারের মতো ইন্ডিয়ান কারীর স্বাদ গ্রহন করে আকৃষ্ট হয়ে পড়েন কারীর প্রতি। তাই গত ১৭এপ্রিল হঠাৎ করে টেলিফোনে ডনকাষ্টার থেকে টেকওয়ের অর্ডার করেন। জানতে চান রেষ্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষ ডেলিভারী দিতে পারবেনকি না, ফোন রিসিভ করে রেষ্টুরেন্ট মালিক জানালেন পঞ্চাশ মাইল দুরে তাদের পক্ষে ডেলিভারী করা সম্ভব নয়, উত্তরে ভোজন বিলাসী কাষ্টমার জানালেন আধাঘণ্টার ভেতর অর্ডার রেডি করা সম্ভব কি-না? তিনি নিজে এসে তা কালেকশন করবেন। আর সত্যি সত্যিই সেই কাষ্টামার মিঃ জন ও মিস ক্যারালাইন ৯০ পাউন্ডের অর্ডার নিতে নিজের হেলিকাপ্টার নিয়ে চলে আসেন ডনকাষ্টার থেকে পঞ্চাশ মাইল দূরে মান্সফিল্ডে। রেষ্টুরেন্ট থেকে তিন মিনিটের দূরত্বে স্থানীয় মাঠে হেলিকাপ্টার নামিয়ে চলে আসেন ক্লাপসন ষ্টীটের মিন্ট রেষ্টুরেন্টে। রেষ্টুরেন্ট মালিক ফয়সল চৌধুরী ও তার  বন্ধু কামাল চৌধুরী অর্ডারটি তুলে দেন হেলিকাপ্টারে। হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ পৌর এলাকার চরগাঁয়ের অধিবাসী ফয়সল চৌধুরী আজ থেকে ১৫বছর পূর্বে ইষ্ট মিডল্যান্ডের মান্সফিল্ডে এই রেষ্টুরেন্টটি প্রতিষ্টা করেন। প্রতিষ্টার পর থেকে প্রতিষ্টানটি কাষ্টমারদের প্রশংসা কুড়াতে সক্ষম হয়েছে। সেই সাথে রেষ্টুরেন্টটি বিভিন্ন সময় মান্সফিল্ড টাউন এফসি সহ স্থানীয় ক্লাবগুলোকে চ্যারিটি ডিনারের মাধ্যমে ফান্ড সংগ্রহ করে সহযোগীতা করে আসছে। রেষ্টুরেন্টটির প্রশংসা করে মিডল্যান্ড গেজেট সহ স্থানীয় পত্রিকা গুলো বিভিন্ন সময় লেখালেখি করায় রেষ্টুরেন্টটির খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে সমগ্র বৃটেনব্যাপী। শুধূ তাই নয় এই প্রতিষ্টানটি কারী এওয়ার্ড সহ বিভিন্ন সময় স্থানীয়, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ভাবে একাধিকবার পুরস্কার লাভ করে। রেষ্টুরেন্ট মালিক ফয়সল চৌধুরী বলেন প্রতিষ্টার পর থেকে তারা সততা রক্ষা করে কাষ্টমারদের ভাল সার্ভিস দেওয়ার চেষ্টা করে আসছেন, আর একারনেই হয়তোবা দূরদুরান্ত থেকে ভোজন বিলাসী কাষ্টমাররা ইন্ডিয়ান কারীর স্বাদ নিতে চলে আসেন মিন্ট রেষ্টুরেন্টে। বর্তমানে সমগ্র বৃটেনজুড়ে রয়েছে বাংলাদেশী মালিকানাধীন ১২ হাজার রেষ্টুরেন্ট যা ইন্ডিয়ান রেষ্টুরেন্ট হিসেবে পরিচিত। এই সেক্টরে কর্মরত আছে এক লক্ষেরও বেশী শ্রমিক।  ব্রিটিশ প্রধান মন্ত্রী ডেভিড ক্যামরুন আজ থেকে কয়েক বছর পূর্বে আরেক ব্রিটিশ বাঙ্গালী এনাম আলী এমবিই প্রতিষ্টিত কারী এওয়ার্ডে এসে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কারী এওয়ার্ডকে কারী অস্কার আখ্যায়িত করে বলেছেন  ব্রিটিশ বাঙ্গালীদের প্রতিষ্ঠিত কারী ইন্ডাষ্ট্রী বৃটেনের অর্থনীতি অবদান রাখছে।