গাইবান্ধায় ভেজাল ঔষধে সয়লাব : প্রশাসনের ভুমিকা নিয়ে নানা প্রশ্ন

gaibandha-01গাইবান্ধা থেকে মোঃ আঃ খালেক মন্ডল :
গাইবান্ধা জেলার ৭টি উপজেলাসহ গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজার গুলোতে গত কয়েক মাস ধরে  ভ্রাম্যমান মোবাইল কোর্ট পরিচালিত না হওয়ায় বিভিন্ন ঔষধের দোকান গুলোতে নিম্ন মানের ও ভেজাল ঔষধের জমজমাট ব্যাবসা শুরু হয়েছে। এক শ্রেনীর অসাধু ব্যাবসায়ী অধিক লাভের আসায় এসব ঔষুধ বিক্রি করায় সাধারন মানুষেরা প্রতারণার শিকার হচ্ছে এবং সেই সাথে ভেজাল ঔষধ খেয়ে মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়ছে অনেকেই।

জানা গেছে, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ পৌর শহর সহ বাগদা, বালুয়া, হরিতলা, ধর্মপুর, চাঁদপাড়া, পানিতলা, দিঘির হাট, কামদিয়া, বৈরাগীর হাট, মহিমাগঞ্জ, শালমারা এবং এলাকার বিভিন্ন গ্রাম অঞ্চলের ছোট ছোট বাজার গুলোতে অসাধু ঔষধ ব্যবসায়ীরা গত বেশ কয়েক মাস ধরে নিম্ন মানের ও সরকার কর্তৃক বিক্রি নিষিদ্ধ ভেজাল ঔষধ এমনকি সরকারী হাসপাতালের ঔষধ এলাকার নিরীহ মানুষের কাছে চড়া দামে এবং দাপটের সাথে বিক্রি করে যাচ্ছেন। নিম্ন আয়ের মানুষদের কোন কিছু হলেই হাতের কাছে থাকা এসব ঔষধের দোকান ও ডাক্তারদের সরনাপন্ন হন। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে এসব ঔষধের দোকানদাররা কিছু ভালো উপদেশ দিয়েই রোগ ভাল হোক বা না হোক তাদের কাছে থাকা নিম্ন মানের ও ভেজাল ঔষুধ পত্র হাতে ধরে দিয়ে মোটা অংকের টাকা কামাচ্ছেন। ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠা এসব ঔষধের দোকানের অনেকের ড্রাগ লাইসেন্স নেই, কারো আবার লাইসেন্স নবায়ন নেই, কারো ভালো টেনিং নেই, অনেকেই আবার টেনিং ছাড়াই টাকার বিনিময় ভুয়া লাইসেন্স নিয়ে ধুম ধারাক্কা ঔষধ ব্যাবসা করে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে যাচ্ছেন। গত বেশ কয়েক মাস ধরে গোবিন্দগঞ্জের বিভিন্ন স্থানের ঔষধের দোকান গুলোতে  ভ্রাম্যমান মোবাইল কোর্ট পরিচালিত না হওয়ায় তারা নিবিঘেœ ভেজাল ও নকল ঔষধের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কি কেউ নেই? তাই এলাকার অভিজ্ঞ মহল সাধারণ মানুষদের প্রতারনার হাত থেকে ও জীবণ বাঁচাতে মোবাইর কোর্ট বসিয়ে এসব লাইসেন্স বিহীন দোকান গুলোতে ভেজাল ও নকল ঔষধ বিক্রি বন্ধের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সংশিষ্ঠ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের একান্ত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।