জাগরণমঞ্চের পাল্টাপাল্টি ‘তাদের এখন হেফাজত দরকার’

19727_f3বিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার বলেছেন, মঞ্চ কারও প্রয়োজনে তৈরি হয়নি। কারও প্রয়োজনে ঘরে ফিরেও যাবে না। ছয় দফা বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত কোন ষড়যন্ত্র এ আন্দোলন বানচাল করতে পারবে না। যারা বলেন গণজাগরণ মঞ্চের দরকার নেই, আসলে তাদের এখন দরকার হেফাজতে ইসলাম ও জামায়াতে ইসলামী। গতকাল বিকালে শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে এক সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। ছয় দফা বাস্তবায়ন এবং যুদ্ধাপরাধের বিচারে ধীরগতির প্রতিবাদে ডা. ইমরানের নেতৃত্বে শাহবাগে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। একই সময় মঞ্চের অপর অংশ কামাল পাশার নেতৃত্বে শাহবাগে মিছিল ও সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে। মঞ্চের বিবদমান দু’টি অংশের একই সময়ে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচিতে শাহবাগে মৃদু উত্তেজনা তৈরি হয়। পুলিশ দু’পক্ষকেই কর্মসূচি পালনে বিরত থাকতে অনুরোধ করলেও তারা কর্মসূচি পালন করে। তবে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।
সমাবেশে ইমরান বলেন- রাজনীতিকরা রাজনীতি করবেন জনগণের জন্য, তাদের আকাঙ্ক্ষাকে শ্রদ্ধা জানিয়ে তাদের ক্ষমতায় যেতে হয়। কিন্তু আমরা প্রতিশ্রুতি মোতাবেক ছয় দফা আদায় করবোই। এ লক্ষ্যে আমরা গত বছরই লাখো মানুষ শপথ নিয়েছি।
তিনি বলেন, কাউকে ক্ষমতায় নিতে বা ক্ষমতা থেকে নামাতে গণজাগরণ মঞ্চ তৈরি হয়নি। ভয় দেখিয়ে, পুলিশ লেলিয়ে দিয়ে কোনো লাভ হবে না। ছয় দফা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত গণজাগরণ মঞ্চ ঘরে ফিরে যাবে না। হামলা-মামলা-আক্রমণে আমরা পিছিয়ে যাবো না। মঞ্চকে বিতর্কিত করার চেষ্টা সফল হবে না। ইমরান এইচ সরকারের নেতৃত্বাধীন সমাবেশে ছাত্র ইউনিয়ন, ছাত্রফ্রন্ট এবং ছাত্র ফেডারেশনের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে গণজাগরণ মঞ্চের কর্মী শিশিরের ওপর হামলা, কয়েকজন কর্মী ও সংগঠকের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবিতে শাহবাগে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে মঞ্চের কামাল পাশার নেতৃত্বাধীন অংশ। বিকাল চারটার দিকে তারা শাহবাগ মোড় থেকে একটি মিছিল বের করে চারুকলা অনুষদ হয়ে আবার শাহবাগে জাদুঘরের উত্তর দিকে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়। এ সময় কামালা পাশা চৌধুরী বলেন, পুলিশের অনুমতি না পাওয়ায় বৃহস্পতিবার আমাদের মূল কর্মসূচি পালন থেকে বিরত থেকেছি। এ মিছিলের মাধ্যমে আমরা সকল রাজাকারের ফাঁসি কার্যকরের দাবি জানাচ্ছি। যত দিন পর্যন্ত দেশে একজন রাজাকারও থাকবে, তত দিন আমরা লড়াই চালিয়ে যাবো। কামাল পাশার নেতৃত্বাধীন অংশের মিছিলে ছাত্রলীগ-স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা-কর্মীদের উপস্থিতি দেখা যায়।