সেন্টমার্টিন সমুদ্রে গোসল বন্ধ ঘোষণা : দ্রুত বিচ কর্মী ও লাইফ গার্ড নিয়োগের নির্দেশ

cox-01এম.শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, কক্সবাজার : পর্যটকদের নিরাপত্তায় কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার প্রবালদ্বীপ সেন্টমার্টিনে দ্রুত বিচ কর্মী ও লাইফ গার্ড নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছেন জেলা প্রশাসক। এছাড়া সাগরে গোসল বন্ধ ও এ সংক্রান্ত নিদের্শনা রাখার উদ্যোগ নিয়েছে জেলা প্রশাসন ও বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটি।

১৭ এপ্রিল বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে স্থানীয় ব্যবসায়ী, গণ্যমান্য ব্যক্তি, পুলিশ, কোস্টগার্ড ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের নিয়ে গঠিত বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

পাশাপাশি পর্যটকদের সর্তকর্তার জন্য লিফলেট বিতরণ, সেন্টমার্টিন দ্বীপের সৈকতের কোথাও অনিরাপদ স্থান আছে কিনা তা চিহ্নিত না হওয়া পর্যন্ত সাগরে গোসল করতে নামা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় সেন্টমার্টিন দ্বীপে বেড়াতে গিয়ে ঢাকার আহসানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের চার শিক্ষার্থীর প্রাণহানি ও দুই ছাত্র জন সাব্বির ও উদয় নিখোঁজ হওয়ার কারণ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয়। একই সঙ্গে সৈকতে গোসল ও পর্যটকদের অন্যান্য নিরাপত্তা প্রদান নিয়ে আলোচনা হয়।

সভায় জানানো হয়, কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে পর্যটকদের গোসলের নিরাপত্তা প্রদানের জন্য বিচ কর্মী ও লাইফ গার্ড কর্মী সার্বক্ষনিক দায়িত্ব পালন করে আসছে। একইভাবে সার্বক্ষনিক দায়িত্ব পালনের জন্য সেন্টমার্টিনে বিচ কর্মী ও লাইফ গার্ড কর্মী নিয়োগ দেওয়া হবে। দ্রুত কর্মী নিয়োগ করে তাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে সেন্টমার্টিনে পাঠানো হবে বলেও সভায় জানানো হয়।

সভায় বক্তব্য রাখেন, বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্য সচিব পর্যটন মোটেল শৈবালের ম্যানেজার নুরুল ইসলাম, সদস্য অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আবুল হোসেন, কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তোফায়েল আহমদ, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোস্তফিজুর রহমান, গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী তসলিম উদ্দিন, সহকারী

কমিশনার (ভূমি) সাদিকুর রহমান, কক্সবাজার পৌরসভার সচিব সামশুউদ্দিন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মোফাজুল হাসান, জেলা পরিষদের সহকারী প্রকৌশলী আব্বাস উদ্দিন আহমদ, কক্সবাজার পর্যটন পুলিশের ওসি জাকের হোসেন মাহমুদ, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা সিরাজুল মোস্তফা প্রমুখ।

গত ১৪ এপ্রিল সেন্টমার্টিন সাগরে গোসল করতে নেমে ভেসে যান আহসানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা। এদের মধ্যে ৯ জন ভেসে গেলেও দ্রুত ৫ জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়। বাকি চারজন নিখোঁজ থাকেন। উদ্ধারকৃতদের টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে  ভর্তি করা হলে সেখানে মানফেজুল ইসলাম ও সাদ্দাম হোসেনকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা।

ঘটনার তৃতীয় দিন গত বুধবার সকালে উদ্ধার করা হয় শাহারিয়ার ইসলাম নোমান ও গোলাম রহিম বাপ্পির মৃতদেহ। এখনো নিখোঁজ রয়েছেন সাব্বির হাসান ও ইতশিয়াক বিন মাহমুদ উদয়। তাদের সন্ধানে উদ্ধার তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে কোস্টগার্ড। বৃহস্পতিবার কক্সবাজার জেলা প্রশাসন সূত্র এ কথা জানায়।