লালমনিরহাটে গৌরী শংকর সোসাইটির ৮ কর্মকর্তা আটক

indexএস,এম সহিদুল ইসলাম লালমনিরহাট প্রতিনিধি ঃ লালমনিরহাট জেলার ঐতিহ্যবাহী হিন্দু ধর্মীয় ট্রাস্ট প্রতিষ্ঠান শ্রী শ্রী গৌরীশংকর গোশালা সোসাইটির প্রায় ১০ কোটি টাকা মূল্যের সম্পদ জালিয়াতির অভিযোগে দায়েরকৃত মামলায় জেলা চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত রবিবার দুপুরে মামলাটির দীর্ঘ শুনানী শেষে এক জনাকীর্ণ আদালত  আসামীদের জামিন না মঞ্জুর করে সোসাইটির কর্মকর্তা ও কর্মচারীসহ ৮ জনকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। আটককৃতরা হলেন, শ্রী শ্রী গৌরীশংকর গোশালা সোসাইটির সহ-সভাপতি রজনী কান্ত বর্মন, সহ সাধারণ সম্পাদক নারায়ন চন্দ্র, কার্যকরী সদস্য অবিনাশ চন্দ্র. নলিনী কান্ত বর্মন, কমলা রঞ্জন রায়, সোসাইটির কর্মচারী গোপাল বর্মন, গৌরীশংকর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালক শিক্ষক খায়রুল ইসলাম খন্দকার ও শিক্ষক শৌমেন্দ্র নাথ রায়। এই মামলার অন্যতম আসামী সোসাইটির সভাপতি আইনজীবী এ্যাডঃ মহেন্দ্রনাথ বর্মন  ও সাধারণ সম্পাদক বীরেন্দ্র নাথ রায় বর্তমানে তারা অন্তবর্তীকালীন জামিনে রয়েছেন।

মামলা সুত্রে জানা গেছে, জেলা শহরে অবস্থিত ঐতিহ্যবাহী গৌরীশংকর গোশালা সোসাইটির অর্থায়নে পরিচালিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘গৌরীশংকর বিদ্যা বিথী (শিশু কানন)’ এর নাম পরিবর্তন করে ‘গৌরীশংকর প্রাথমিক বিদ্যালয়’ নাম রেখে নিয়ম বহির্ভূতভাবে নিকট আত্মীয়স্বজনকে নিয়োগ দিয়ে সোসাইটির ২ একর ট্রাস্ট সম্পত্তি (যার মুল্য প্রায় ১০ কোটি টাকা) জাল- জালিয়াতির মাধ্যমে সরকারিকরনের জন্য  কাগজপত্র দাখিল করে। ঘটনাটি জানাজানি হলে সারা জেলার হিন্দু সম্প্রদয়ের লোকজনের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। সোসাইটির আইন উপদেষ্টা এড. চিত্ত রঞ্জন রায় বাদী হয়ে সোসাইটির সভাপতি এ্যাডঃ. মহেন্দ্রনাথ বর্মন ও সাধারণ সম্পাদক বীরেন্দ্র নাথসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে গত চলতি বছরের ১৯ ফেব্র“য়ারী মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ৪৪/২০১৪।