আগামী দুই বছরের মধ্যেই পার্বত্যাঞ্চলের যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়নে বৈপ্লবিক পরির্বর্তন দৃশ্যমান হবে

OLYMPUS DIGITAL CAMERAখাগড়াছড়ি প্রতিনিধি :
যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আগামী দুই বছরের মধ্যেই পার্বত্যাঞ্চলের যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়নে বৈপ্লবিক পরিবর্তন দৃশ্যমান হবে। পার্বত্য এলাকার সাথে প্রতিবেশী দেশের সাথে কানেক্টিভিটি বাড়ানোর মাধ্যমে পর্যটনভিত্তিক বিশেষ অর্থনৈতিক জোন গড়ে তোলার পাশাপাশি ভারত ও মিয়ানমারের সীমান্ত এলাকায় চার হাজার কিলেমিটার রিং রোড নির্মাণের প্রক্রিয়া অব্যাহত আছে।

তিনি শনিবার দুপুরে খাগড়াছড়ি সেনা রিজিয়নের সাজেক ভ্যালীতে সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোর (ইসিবি)-এর উদ্যোগে ২’শ ৮২ কোটি টাকার ৪টি সড়ক ও সেতু নির্মাণ কাজের প্রকল্প উদ্বোধনে এসব কথা বলেন।

এসময় খাগড়াছড়ি’র সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, ইসিবি’র প্রধান মেঃ জেনারেল মোঃ আব্দুল কাদির, চট্টগ্রামের জিওসি মেঃ জেনারেল সাব্বির আহমেদ, খাগড়াছড়ি রিজিয়নের অধিনায়ক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল কাজী শামসুল ইসলাম, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ আব্দুল ওহাব, ইসিবি’র কর্মকর্তা লেঃ কর্ণেল এ এস এম ফয়সাল, লেঃ কর্ণেল আরিফ উদ্দিন মাহমুদ, লেঃ কর্ণেল আহমেদ জামিউল ইসলাম, ১৯-ইসিবি’র অধিনায়ক মেজর মোহাম্মদ আজিজুর রউফ এবং এ এস এম তৌহিদুল ইসলাম এবং খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামীলীগের সাঃ সম্পাদক মোঃ জাহেদুল আলম।

যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের প্রসঙ্গে বলেন, সরকার পার্বত্য এলাকার মানুষের আশা-আঙ্খাকার প্রতিফলন ঘটাতে এই মেয়াদেই চুক্তি’র কমপক্ষে নব্বই শতাংশ বাস্তবায়ন শেষ করবে। সেজন্য সংশ্লিষ্টরা রাতদিন কাজ করে চলেছে। সেক্ষেত্রে পাহাড়ের মানুষের সহযোগিতা যেমন জরুরী, তেমনি প্রয়োজন এলাকায় শান্তি ও সহাবস্থান।

মন্ত্রী পার্বত্যাঞ্চলের পর্যটন ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন সর্ম্পকে বলেন, সরকার সীমান্তবর্তী সড়ক অবকাঠামো উন্নয়নের মাধ্যমে পার্বত্য এলাকায় পর্যটনভিত্তিক বিশেষ অর্থনৈতিক জোন গড়ে তুলতে চায়।

যোগাযোগমন্ত্রী পরে সাজেক এলাকার লুসাই, পাংখো এবং ত্রিপুরাদের উপস্থিতিতে একটি সুধী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন।