‘বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন’

18771_olবিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন লিবারেল  ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীরউত্তম। বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর অবদান আমরা অস্বীকার করি না। তবে তিনি জনগণকে উৎসাহিত করেছিলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নয়, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন। আজ জাতীয় প্রেস ক্লাবে দলের সপ্তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গণতান্ত্রিক যুবদল আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। অলি আহমদ বলেন, বঙ্গবন্ধু গ্রেপ্তার ছিলেন বলে স্বাধীনতার ঘোষণা করতে পারেননি। সেদিন স্বাধীনতার ঘোষণা করেছিলেন শহীদ জিয়া। আমি সেদিন তার পাশে বসা ছিলাম। ইতিহাস কি আওয়ামী লীগের নেতাদের কাছে জানতে হবে? তিনি বলেন, যুদ্ধে সাধারণ মানুষ ও বিভিন্ন বাহিনীর সদস্যরা অংশ নিলেও আওয়ামী লীগের কোন নেতাকর্মী অংশ নেননি। তিনি বলেন, সংসদে তোফায়েল আহমেদের মতো সিনিয়র নেতারা স্বাধীনতার ঘোষককে নিয়ে যে সকল নসিহত দিচ্ছেন তা আমাদের শোনার দরকার নেই। কারণ আমরা স্বাধীনতা যুদ্ধে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ছিলাম। এসব ইতিহাস আমরা স্বচোখে দেখেছি। আওয়ামী লীগের উদ্দেশে অলি আহমেদ বলেন, আপনারা যে ভোটচোর, তা বর্তমান প্রজন্ম জানতো না। সেটা তাদের জানালেন, এ জন্য আপনাদের ধন্যবাদ।  অলি আহমেদ বলেন, এ সরকারের আমলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ছাড়া সবাই নির্যাতিত। ৪০ হাজারেরও বেশি বিরোধী দলের নেতাকর্মী জেলাখানায়। এসব নেতাকর্মী নামাজ পড়ে আল্লার কাছে কান্নাকাটি করে সরকারের পতন চাইছেন। আল্লাহ তাদের কথা শুনবেন। অলি আহমদ  বলেন, প্রখ্যাত সাংবাদিক ও মুক্তিযোদ্ধা এবিএম মূসাকে মৃত্যুর পর আওয়ামী লীগ শ্রদ্ধা জানায়নি। একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা হওয়া সত্ত্বেও যদি আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকাকালে মরে যাওয়ার পর আমাকে শ্রদ্ধা না জানায় তাহলে আমার কোন দুঃখ থাকবে না। সংগঠনের সভাপতি তমিজ উদ্দিন টিটুর সভাপতিত্বে সভায় এলডিপির যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, যুবদলের সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, এলডিপির প্রেসিডিয়াম সদস্য কামালউদ্দিন মোস্তফা, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ইসমাইল হোসেন বেঙ্গলসহ গণতান্ত্রিক যুবদলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা বক্তৃতা রাখেন।