সংবিধান অনুযায়ী তারেকের বিচার সম্ভব: সুরঞ্জিত

বিডি রিপোর্ট 24 ডটকম , image_76340_0ঢাকা: দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও ইতিহাস বিকৃত করার অভিযোগ এনে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় তারেক রহমানের বিচার করা সম্ভব বলে সংসদকে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। তিনি বলেছেন, বর্তমান সংবিধান অনুযায়ীই সেটি সম্ভব।

বৃহস্পতিবার দশম জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনের শেষ কার্যদিবসে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর ধন্যবাদ প্রস্তাবের সাধারণ আলোচনায় তিনি এ কথা বলেন।

সুরঞ্জিত বলেন, “সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনের পর এই সংবিধানের একটি দাঁড়ি-কমাও পরিবর্তনের ক্ষমতা কারো নেই। কোনো সংসদ এই সংবিধান পরিবর্তন করতে পারবে না, কোনো আদালতের রায়ও এই সংবিধানকে পরিবর্তন করতে পারবে না। প্রধানমন্ত্রীর সম্মতিতে এবং দেশের বিশিষ্ট নাগরিকদের সঙ্গে পরামর্শ করে এই সংবিধান সংশোধন করা হয়েছে।”

দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস যাতে কেউ অমান্য ও বিকৃত করতে না পারে, সেই জন্য সংবিধানের সংশোধন হয়েছে জানিয়ে সুরঞ্জিত বলেন, “তারেক রহমান বিদেশে বসে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করে যেসব বক্তব্য দিয়েছেন, তা বর্তমান সংবিধানের আলোকেই তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করা যায়। এবং রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে তাকে সর্বোচ্চ শাস্তি দেয়া যায়।’
সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেন, “তারেক ও সাবেক অশিক্ষিত প্রধানমন্ত্রীর (খালেদা) সাম্প্রতিক বক্তব্যগুলো সহজভাবে নেয়া উচিত নয়। এর পেছনে গভীর রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র ও দুরভিসন্ধি রয়েছে। তারা পাকিস্তানের আইএসআইয়ের পরামর্শে দেশকে পাকিস্তানের ভাবধারায় ফিরিয়ে নিতে  চায়।”

তারেকের বক্তব্য স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও প্রজাতন্ত্রের ওপর হুমকির শামিল বলে দাবি করে সুরঞ্জিত বলেন, “এটা মেনে নেয়া যায় না। স্বাধীনতার ৪৩ বছর পর একজন অর্ধশিক্ষিত যুবক বঙ্গবন্ধুকে অবৈধ প্রধানমন্ত্রী বলছে। এটা রাষ্ট্রদ্রোহের অপরাধ। ক্রিমিনাল কোর্টে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব না হলে আইন সংশোধন করতে হবে। তবে মামলা করতে বাধা নেই।” তিনি এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী ও আইনমন্ত্রীকে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানান।

বর্তমান সরকারের মন্ত্রীদের সমালোচনা করে সুরঞ্জিত
প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে বলেন, “নিকৃষ্টদের বাদ দিয়ে উৎকৃষ্টদের মন্ত্রী বানিয়েছেন। মন্ত্রীরা যেভাবে একে-অপরের বিরুদ্ধে কথা বলছেন, তা শোভন নয়। বিশেষ করে সিনিয়র মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে।” তিনি আরো বলেন, “প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের সঙ্গে মন্ত্রীদের সুসম্পর্ক থাকতে হবে। নইলে কর্মচারীদের হেলমেট পরে মন্ত্রীদের সামনে আসতে হবে।”