মিরসরাইয়ে ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত যাত্রী নিহত

10_64730বিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : মিরসরাইয়ের তালবাড়িয়া এলাকায় চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী কর্ণফুলী এঙ্প্রেস ট্রেনের তিনটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে এক মহিলা যাত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। সোমবার দুপুর ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত যাত্রীর নাম নাছিমা (৩৫)। তিনি লাইনচ্যুত একটি বগির নিচে চাপা পড়ে নিহত হন। দুর্ঘটনায় অন্তত পাঁচ যাত্রী আহত হয়েছেন। এর মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় দুই যাত্রীকে মিরসরাই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারা হচ্ছেন জাহানারা বেগম (৩৫) ও মোহাম্মদ দিদার (৫০)। নিহত নাছিমা আক্তার কঙ্বাজার জেলার রামু থানার কদরপাড়া এলাকার বাসিন্দা নাজিম উদ্দিনের স্ত্রী। দুর্ঘটনা তদন্তে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের সহকারী প্রধান পরিবহন কর্মকর্তা ফিরোজ ইফতেখারকে প্রধান করে চার সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে এক সপ্তাহের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছে। দুর্ঘটনাস্থলে ডাবল রেললাইন থাকায় ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মেকানিক্যাল বিভাগের এক প্রকৌশলী জানান, ট্রেনের শেষের তিন বগির একটি থেকে হঠাৎ প্লেট ভাল্ব নামে একটি ইকুইপমেন্ট পড়ে যায়। এটি পড়ার পর রেললাইনে আটকে যায়। এতে পেছনের তিন বগি মূল ট্রেন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে লাইনচ্যুত হয়ে উল্টে যায়। পরে সন্ধ্যা ৬টার পর পাহাড়তলী থেকে রিলিফ ট্রেন ঘটনাস্থলে পৌঁছে বগিগুলো উদ্ধার করে। মিরসরাই সংবাদদাতা জানান, ট্রেনটি চট্টগ্রাম স্টেশন থেকে ছেড়ে যাওয়ার পর মিরসরাই স্টেশনের কাছাকাছি পৌঁছলে পেছনের বগি থেকে গিয়ার ইকুইপমেন্ট খুলে পড়ে যায়। এর পরপরই দুই লাইনের সংযোগ পার হওয়ার সময় পেছনের তিনটি বগি লাইনের সঙ্গে আটকে গিয়ে উল্টে যায়। দুর্ঘটনার পরপরই ফায়ার সার্ভিসের সীতাকুন্ডু ও কুমিরা স্টেশন থেকে দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার কাজে অংশ নেয়। চট্টগ্রাম রেলওয়ে পুলিশের ওসি মোহাম্মদ ইয়াছিন ফারুক জানান, দুর্ঘটনায় একজনের মৃত্যু হয়েছে। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির প্রধান সহকারী প্রধান পরিবহন কর্মকর্তা ফিরোজ ইফতেখার জানান, পুরো ঘটনা যাচাই না করা পর্যন্ত দুর্ঘটনার প্রকৃত কারণ বলা যাবে না। তদন্ত শেষে দ্রুত রিপোর্ট জমা দেয়া হবে।