গোবিন্দগঞ্জে নিখোঁজ ব্যক্তির থানায় হাজির এলাকায় চাঞ্চল্য

gaibandha-01গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ
গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে এক নিখোঁজ ব্যক্তি মাসাধিক কাল পরে নিজে থানায় এসে হাজির হয়েছে। বুধবার গোবিন্দগঞ্জ থানায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, উপজেলার ফুলবাড়ী ইউনিয়নরে ফুলবাড়ী গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের পুত্র নাসির আহম্মদ (২৫) গত ৩০ জানুয়ারী বাজার করে ফেরার পথে নিখোঁজ হয়। তার ব্যবহৃত রক্তমাখা গায়ের কাপড় ও  স্যান্ডেল বাড়ির পার্শ্বে রাস্তায় ফেলে রাখা হয়। পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের লোকজন দিনব্যাপী পার্শ্ববর্তীতে করতোয়া নদী ও আশেপাশের পুকুরে খুজেও তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে গোবিন্দগঞ্জ থানায় ৩ জন কে আসামী করে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করা হয়। দেশের প্রায় সকল পত্রিকা ও টিভি চ্যানেলে এই ঘটনা ফলাও করে প্রচার করা হয়। আসামী মন্টু মিয়া এই মামলায় একমাস জেল খাটে। পরবর্তীতে অনেক খোজাখুজি করেও নাসির আহম্মদ ওরফে লাভলু কে কোথায় পাওয়া যায় নি। হঠাৎ গতকাল বুধবার নাসির আহম্মদ গোবিন্দগঞ্জ থানায় এসে হাজির হয়। নিজেকে ফুলবাড়ী থেকে নিখোঁজ হওয়া লাবলু বলে দাবী করে। পুলিশ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে ঘটনার বিস্তারিত জানায়। সংশিষ্ট সূত্র জানায়, সে নিজেই এই নাটকের জন্ম দিয়েছে। একই গ্রামের মৃত আঃ জলিলের পুত্র মানিকের কাছ থেকে টাকা চাইলে সে টাকা দিতে অস্বীকার করায় তাকে ফাঁসানোর জন্য সে এই ঘটনা সাজায়। সে আরও জানায় বাজার থেকে ফেরার পথে নদীতে গোসল করে গায়ের কাপড় ও স্যান্ডেলে মুরগির রক্ত মাখিয়ে বাড়ীর যাওয়ার রাস্তার পার্শ্বে ফেলে রেখে যায়। যাতে সকলের বিশ্বাস জন্মে যে তাকে অপহরণ করে হত্যা করা হয়েছে। এরপর মাসাধিক কাল নিশ্চুপ থাকার পর হঠাৎ করে গতকাল গোবিন্দগঞ্জ থানায় হাজির হলে পুলিশ তাকে কোটে প্রেরণ করে। গোবিন্দগঞ্জ থানা ওসি (তদন্ত) মেহেদী হাসান জানান, নিখোঁজ হওয়া নাসির আহম্মদ ওরফে লাভলু অপহরণের সপক্ষে জবানবন্দি দিলেও বিবরণের সত্যতা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। এ রিপোট লেখা পর্যন্ত সে গোবিন্দগঞ্জ কোট হাজতে রয়েছে।