গর্ভপাতের অভিযোগে দিনাজপুরে ডাক্তারসহ ২ জনের ৮ বছরের সশ্রম কারাদন্ড জরিমানা

indexপ্রতিনিধি হাকিমপুর (দিনাজপুর) :
দিনাজপুরের ঔষধ প্রয়োগের মাধ্যমে ৫ মাসের গর্ভবর্তী মায়ের বাচ্চা মৃত্যু ঘটানোর অভিযোগে চিকিৎসক ও তার সহযোগিকে দোষী সাব্যস্ত করে প্রত্যেককে ৮ বছর সশ্রম কারাদন্ড এবং ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে ১ বছরের সশ্রম কারাদন্ডের রায় প্রদান করেছেন।

মঙ্গলবার বিকেল ৪ টায় দিনাজপুরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ (২) এর বিচারক মোঃ মাহমুদুল করিম তার আদালতে আসামী দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র গাইনি কনসালটেন্ট ডাঃ মোঃ হজরত আলী ও বোচাগঞ্জ উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের হাকিমউদ্দীনের পুত্র মোস্তাফিজুর রহমান মিন্টুকে ৮ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ১ বছর সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডিত করেছেন। রায় ঘোষনার পর দন্ডিত ২ জন ওই আসামীকে পুলিশ প্রহরায় দিনাজপুর জেলা কারাগারে প্রেরণ করেন। মামলার বিচার চলাকালে বাদী পক্ষে ৮ জন স্বাক্ষ্য গ্রহণ ও উভয় পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে এ রায় প্রদান করা হয়।

মামলার বিবরণে প্রকাশ, ৯৯ সালের ২৬ এপ্রিল বিকেল ৩ টায় ডাক্তার মোঃ হজরত আলী বোচাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত অবস্থায় একই উপজেলার রামপুরা গ্রামের আমিনুল ইসলামের কন্যা আনিসা বেগমের গর্ভপাত করলে এক মৃত শিশু কন্যা প্রসব হয়। বোচাগঞ্জ উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের হাকিম উদ্দীনের পুত্র মোস্তাফিজুর রহমান মিন্টু আনিসার সাথে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দৈহিক মিলন করলে আনিসা ৫ মাসের অন্তঃস্বত্বা হয়। তখন মিন্টু সন্তান নষ্টের জন্য ডাঃ হজরত আলীর শরনাপন্ন হলে চিকিৎসার মাধ্যমে আনিসা এক মৃত কন্যা সন্তান প্রসব করেন।

এই ঘটনায় আনিসার পিতা আমিনুল ইসলাম বাদী হয়ে গত ১৯৯৯ সালের ৩০ এপ্রিল দিনাজপুর ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ডাঃ হজরত ও মিন্টুর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করলে বিচারক অভিযোগটি বোচাগঞ্জ থানায় প্রেরণ করেন। পুলিশ তদন্ত করে ওই ২ জন আসামীর বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট দিলে বিচারক কাজ শুরু হয়। বিচারে বিজ্ঞ বিচারক উপরোক্ত রায় প্রদান করেন।##