মনিরামপুরে যুবদল নেতা আশিক হত্যা মামলার বাদির ওপর আসামিদের হামলা

jjoishorমনিরামপুর(যশোর)প্রতিনিধি :
মনিরামপুরের চিনাটোলায় যুবদল নেতা আশিক হত্যার চারমাস অতিবাহিত হতে চললেও পুলিশ অধ্যাবধি পর্যন্ত কোন আসামিকে আটক করেনি। উপরোক্ত অভিযোগ রয়েছে আসামীরা মামলা প্রত্যাহারের জন্য শুক্রবার প্রকাশ্যে বাদির উপর হামলা চালিয়ে তাকে বেধড়ক মারপিট করেছে। অভিযোগ রয়েছে আসামীরা সকলই ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মী হওয়ায় পুলিশ তাদেরকে আটক করছেনা। অপরদিকে সন্ত্রাসীদের অব্যাহত হুমকিতে মুখে মামলার বাদি ও তার পরিবারবর্গ ব্যাপক উৎকণ্ঠা ও নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে দিনাতিপাত করছে।

জানাযায় আশিক হত্যা মামলার বাদি নিহতের পিতা আবু তৈয়ব গোলদার শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে চিনাটোলা বাজারের নসিমন ষ্ট্যান্ডে বসে ছিলেন। এসময় আশিক হত্যা মামলার প্রধান আসামি আ’লীগ নেতা হালিমের নেতৃত্বে অন্যান্য আসামি শহিদুল ইসলাম, আবুল কলাম, হোসেন আলী, আবদুস সামাদ, আবদুস সালাম সহ ১৫/১৬ জন সন্ত্রাসী লাটিসোটা ও রাম দা নিয়ে আবু তৈয়বের ওপর হামলা চালিয়ে তাকে বেধড়ক মারপিট করে। আবু তৈয়ব অভিযোগ করেন মারপিট করে চলে যাওয়ার সময় সন্ত্রাসীরা তাকে মামলা প্রত্যাহারের জন্য এক সপ্তাহ সময় বেঁধে দিয়েছে। অন্যথায় তাকে সহ তার পরিবারকে হত্যা করার হুমকি দেয়। এ ঘটনায় ওসি মিজানুর রহমান জানান, আসমিদের আটকের জন্য এলাকায় পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

গত বছর ২১ নভেম্বর রাতে চিনাটোলা বাজারে আওয়ামীলীগ এবং বিএনপির কর্মীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া সহ বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ হয়। এসময় আওয়ামীলীগ সন্ত্রাসীদের হাতে গুরুতর আহত হয় যুবদল নেতা আশিকুর রহমান। আশিকুরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হলে ২২ নভেম্বর বিকেলে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় নিহতের পিতা আবু তৈয়ব গোলদার বাদি হয়ে শ্যামকুড় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মনিরুজ্জামান, আবদুল হালিম, শহিদুল ইসলাম, যুবলীগ নেতা আবদুল জব্বার, নূর আলী, শহিদুল, ফজলুর রহমান, আবুল কালাম সহ ২৫ নেতাকর্মীর নামে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।