কবিরহাটে আওয়ামীলীগ সেক্রেটারীকে আটকের গুজবে থানায় হামলা ভাংচুর,আহত ১০

Noakhali Pic 06 March 2014 (1)নোয়াখালী প্রতিনিধি :
নোয়াখালীর কবিরহাট পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল হক রায়হানকে আটক করা হয়েছে এই গুজবে কবিরহাট থানায় হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করেছে স্থানীয় আওয়ামীলীগ। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৪০ রাউন্ড গুলি ছোঁড়ে। এ ঘটনায় পুলিশসহ ১০জন আহত হয়েছেন। বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন, শাহাদাত হোসেন (২৬), আব্দুল ওয়াহিদ ফরোয়ানা (২৪), রিয়াজ উদ্দিন বাদশা (২৪) ও স্বপন (২২)। পুলিশ সদস্যদের নাম পাওয়া যায়নি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কবিরহাট পৌর মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল হক রায়হানকে আটক করে থানায় নিয়ে আনা হয়েছে এমন গুজব ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন একত্রিত হয়ে থানায় হামলা চালায়। এসময় তারা থানার বাহিরের অংশে থাকা কাঁচ (গ্লাস) ভাঙচুর করে। পরে পুলিশ গুলি ছুঁড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

পৌর মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল হক রায়হান বলেন, ‘পুলিশ রাতে ঘোষবাগ ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের সিরাজ মিয়ার ছেলে বকতিয়ার ও মনির হোসেনকে থানায় নিয়ে যায়। খবর পেয়ে কেন তাদের থানায় নিয়ে আনা হয়েছে জানতে তিনি থানায় যান। এর মধ্যে তিনি পুলিশের হাতে আটক হয়েছেন এমন সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন থানায় আসেন। এসময় লোকজন তাকে দেখার জন্য থানার ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা করলে গেটে দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। এর এক পর্যায়ে ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে।

এসময় শাহাদাত হোসেন, আব্দুল ওয়াহিদ ফরোয়ানা, রিয়াজ উদ্দিন বাদশা ও স্বপন আহত হয়। আহতদের মধ্যে শাহাদাত হোসেনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বাকিদের নোয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

কবিরহাট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহবুবুল আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।