কুড়িগ্রামের উলিপুরে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি

indexসৌরভ কুমার ঘোষ,কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর থানায় হাতিয়া, বেগমগঞ্জ, দূর্গাপুর, পান্ডুল সহ প্রায় সব ইউনিয়নেই যাত্রার নামে জুয়া, নারী ব্যবসা এবং মাদকের রমরমা ব্যবসা উলিপুর থানা পুলিশের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় চলার অভিযোগ দীর্ঘদিনের হলেও সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষ, দীর্ঘদিনে জুয়া, নারী ব্যবসা এবং মাদকের ব্যবসা বন্ধে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় উলিপুর উপজেলার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি মারাত্মক হুমকির সম্মুখীন। ঘটনায় প্রকাশ উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের নতুন অনন্তপুর বাজারের মাদক সম্রাট লিটু দীর্ঘদিন থেকে গাঁজা, বিদেশী মদ, কথিত দেশীয় মদ এবং নারী ব্যবসা করার ফাকে গত তিন মাস আগে উলিপুর থানার সহযোগিতায় হাতিয়া এবং বুড়াবুড়ি ইউনিয়নের সীমানা পয়েন্টে যাত্রার নামে জুয়া এবং নারী ব্যবসা চালু করলে বুড়াবুড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন চাঁদ এর নির্দেশে এলাকাবাসী জোটবদ্ধ হয়ে জুয়ার টাকা নেওয়ার জন্য উলিপুর থানা পুলিশের দালাল আমজাদ হোসেনকে আটক করে উলিপুর থানার ওসি সাহেবকে অবহিত করলে থানা পুলিশ এবং জুয়ারী সম্রাট লিটু এলাকাবাসীর নিকট যান এবং জুয়া আর না খেলার অঙ্গিকার করলে এলাকাবাসী থানার দলাল আমজাদ হোসেনকে ছেড়ে দেয়। উক্ত ঘটনার পর পান্ডুল, দুর্গাপুর, হাতিয়া, বজরা এবং বেগমগঞ্জ ইউনিয়নে সমানে চলতে থাকে যাত্রার নামে জুয়া এবং নারী ব্যবসা। ফলে ছিচকে চুরি এবং রাতে রাস্তা অবরোধ করে ডাকাতি দিন দিন বাড়তে থাকে। বুড়াবুড়ি ইউনিয়নে আঠার পাইকা গ্রামে একই রাতে চুরি হয় ১৮টি টিউবওয়েলের মাথা। হাতিয়া বুড়াবুড়ির সীমান্ত পয়েন্টে ডিসি ৫০ রাস্তায় প্রতিনিয়ত কেড়ে নেওয়া হচ্ছে পথচারীদের সম্পদ। মাদক সম্রাট লিটুর বাসায় দিনে চলে গাঁজা মদ এবং ডাইল খাওয়ার আসর এবং রাত হলে বেড়িয়ে পড়ে প্রত্যেকটি ইউনিয়নে কি ভাবে জুয়া এবং নারী ব্যবসা চলবে তার জন্য। এ অবস্থা দেখার যেন কেউ নেই। এলাকাবাসীর আর্তি ! সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষ ঘটনাগুলো বন্ধে নজর দিবেন কি?