ফুলবাড়ী সীমান্তে দুই বাংলাদেশীকে ধরে নিয়ে বিএসএফের নির্যাতন, ৪ ঘন্টা পর ফেরত

indexসৌরভ কুমার ঘোষ,কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার কুরুষা ফেরুষা সীমান্তের ৯৩৬/৬এস আর্ন্তজাতিক পিলারের নোম্যান্স ল্যান্ড এলাকা থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার ভারতের বশকোটাল ক্যাম্পের বিএসএফ দুই বাংলাদেশী যুবককে ধরে নিয়ে নির্যাতন চালিয়েছে। পরে বিজিবির সহযোগিতায় ৪ ঘন্টা পর তাদের ফেরত দেয় বিএসএফ। নিযর্াাতিত দুই যুবক হলো-  গাইবান্ধার জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শান্তিরাম গ্রামের কৃষ্ণ চন্দ্র শীলের পুত্র মিলন চন্দ্র শীল (২০) ও ফুলবাড়ী  উপজেলার রাবাইতাড়ী  গ্রামের ব্রজেন চন্দ্রের পুত্র বিশ্বজিৎ চন্দ্র (২৫)। সীমান্ত সূত্রে জানাযায়, উপজেলার কুরুষা-ফেরুষা সীমান্তের ৯৩৬/৬ এস আর্ন্তজাতিক পিলারের নোম্যান্স ল্যান্ড এলাকার ভারতীয় বশকোটাল গ্রামের নলীনি কান্ত বর্মন প্রতিবছর এই সময়ে অনেকটা আর্ন্তজাতিক আইন লংঘন করে তার বাড়ীতে মহানমযজ্ঞ অনুষ্ঠানের নামে এক দিনের এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। রাত দিনের এ অনুষ্ঠানে ভারত- বাংলাদেশের হাজার হাজার মানুষ সীমান্ত আইন অমান্য করে অনায়াসে ভারত-বাংলাদেশ চষে বেড়ায়। তাদের সাথে এই সুযোগে ভারত-বাংলাদেশের চোরাকারবারীরা পাচার করে ওই দিন শক্তিশালী চোরাচালানী পন্য। দীর্ঘ দিনের মতো চলে আসা ভারতীয় নাগরিকের এই অনুষ্ঠান চলছিল ২৮ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার। অন্যান্য বাংলাদেশীর মতো এ দিন ওই অনুষ্ঠানে যোগদেয় বাংলাদেশী দুই যুবক মিলন চন্দ্র শীল ও বিশ্বজিৎ চন্দ্র। তারা অনুষ্ঠানস্থলে কৌতুহলী হয়ে তাদের ব্যবহ্নত মোবাইল দিয়ে ছবি তোলার চেষ্টা করলে বশকোটাল ক্যাম্পের বিএসএফ দুই যুবককে ধরে ফেলে। তাদের বেধড়ক মারপিট করে বিএসএফ। পরে ওই দুই যুবককে বিএসএফ জেলহাজতে প্রেরণের চেষ্টা করলে বিষয়টি তৎক্ষনাৎ কুড়িগ্রাম ৪৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের শিমুলবাড়ী কোম্পানী জানতে পেরে বিএসএফকে এঘটনার প্রতিবাদ ও দুই বাংলাদেশী যুবককে ফেরত দেয়ার দাবি করলে ধরার ৪ ঘন্টা পর বিকাল ৫টা দিকে দুই যুবককে ফেরত দেয় বিএসএফ। এঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন বিজিবির শিমুলবাড়ী কোম্পানী কমান্ডার  সুবেদার রায়মোহন।

এ ঘটনায় ওই সীমান্তের নোম্যান্স ল্যান্ড এলাকায় এমন অনুষ্ঠান বন্ধে বিজিবির উদ্যোগ দাবি করেছে এলাকার সচেতন মানুষ।