প্রতিপক্ষের হামলায় চিরদিনের জন্যে পঙ্গুত্ব বরন করলেন যুবদল নেতা দেলওয়ার হোসেন দিপু

delwar H Dhipuমতিয়ার চৌধুরী,লন্ডন প্রতিনিধিঃ একুশে ফেব্রুয়ারী মধ্যরাতে লন্ডনের আলতাব আলী পার্কের শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে এসে চিরদিনের জন্যে পঙ্গুত্ব বরন করলেন যুক্তরাজ্য যুবদলের অন্যতম নেতা দেলওয়ার হোসেন দিপু। শহীদ মিনার চত্তরে দেশের প্রধান দুটি রাজনৈতিক দলের অঙ্গ সংগঠন যুবলীগ ও যুবদলের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও মারামারিতে চিরদিনের জন্যে পঙ্গু হয়েছেন যুবদল কর্মী দেলওয়ার হোসেন দিপু ,আহত হয়েছেন যুবদল নেতা দেওয়ান মোকাদ্দেম চৌধুরী নিয়াজ সহ আরো কয়েকজন । পবিত্র স্থান শহীদ মিানারে  প্রধান দুটি রাজনৈতিক দলের এহেন  আচরনে সাধারন মানুষ আতংকগ্রস্থ হয়ে পড়েন।  একুশে ফেব্রুয়ারী রাত বারটার পূর্ব থেকেই বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক ও রাজনৈদিক দলের সদস্যরা উপস্থিত হন শহীদ মিনারের পাদদেশে। সারিবদ্ধ ভাবে লাইনে দাড়িয়ে থাকা ছাত্রদল/ ছাত্রলীগ যুবদল ও যুবলীগ কর্মীরা দলীয় শ্লোগান দিতে থাকলে এক পর্য্যায়ে উভয় সংগঠনের নেতাকর্মীদের মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে। শহীদ মিনার কমিটির পক্ষ থেকে বারবার অনুরোধ করা সত্বেও রাজনৈতিক শ্লোগান দেওয়া থেকে কাউকেই বিরত রাখা যায়নি, রাত ঠিক বারটা একমিনিটে প্রথমে শহীদ মিনারে পুষ্পার্ঘ অর্পন করেন লন্ডনে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মিজারুল কায়েস ও টাওয়ার হ্যামলেটের নির্বাহী মেয়র লুৎফুর রহমান, আওয়ামীলীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ। এর পর পরই লাইনে দাড়িয়ে থাকা যুবলীগ ও যুবদল কর্মীরা দলীয় শ্লোগাগ দেওয়াকে কেন্দ করে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন । একপর্য্যায়ে যুবলীগ কর্মীদের ছুঁড়ে মারা ষ্টীলের ব্যারিয়ারে আঘাতে মারাত্মক ভাবে আহত হন যুবদল নেতা দেলওয়ার হোসেন দিপু।  তাৎক্ষনিক পুলিশী হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়, আহতদের নেওয়া হয় হাসপাতালে, প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে অন্যান্যদের ছেড়ে দেওয়া হলেও যুবদল নেতা দেলওয়ার হোসেন দিপুর আঘাত মারাত্মক হওয়ায়  গত ২৭ফেব্রুয়ারী নিউহ্যাম জেনারেল হাসপাতালে  তার পায়ে অস্ত্রপ্রচার করা হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন আঘাত এতই মারাত্মক যে পায়ের গোড়ালী থেকে জয়েন্ট ছুটে গেছে তিনি চির দিনের জন্যে পঙ্গু হয়ে যেতে পারেন।  শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে এসে পবিত্র স্থান শহীদ মিনারে রাজনৈতিক শ্লোগান দেওয়া কতটুকু যৌক্তিক রাজনীতিকরাই ভেবে দেখবেন? সেই সাথে শহীদ মিনারের পবিত্রতা রক্ষায় শহীদ মিনার কমিটিও এবিষয়ে আরো উদ্যোগী হবেন এটাই সর্বসাধারনের প্রত্যাশা।