ময়মনসিংহের সুফিয়া ব্যবসা আর কর্মব্যস্ততায় ভূলে থাকে হারানোর ব্যথা

muktagacha(mymensingh) sufiaমনোনেশ দাস : ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা শহরে ৪ টি বাজারে ১২শ’ জন  পণ্য সামগ্রী  বিক্রেতার মধ্যে একমাত্র নারী সুফিয়া খাতুন (২৬) । দরিচারআনি বাজারে সারাদিন শাক সবজি বিক্রি করে কোন রকমে চলে যায় তার সংসার । কর্মচাঞ্চল্যে সদাব্যস্ত সুফিয়া ভুলে থাকে  না পাওয়ায় কষ্ট । জন্মের পর পরই গত হয় বড়গ্রাম ইউনিয়নের রওয়ারচর গ্রামের বাসিন্দা বাবা শাহাদ আলী আর মা চিনু বেগম । । এরপর নানী আমেনা বেগম এর বাড়িতে বেড়ে উঠা । সুফিয়ার ১২ বছর বয়স হলে নানীর মৃত্যুতে কপাল ভাঙ্গে । সব হারিয়ে কাঁদতে কাঁদতে ডান চোখটি নষ্ট হয়ে যায় । জীবিকার তাগিদে মানুষের বাসা বাড়িতে ঝি এর কাজ বেছে নেয় । এ পেশায় ৬ বছর । এই ৬বছরে বাসা বাড়ির মালিক ও তাদের আতœীয় স্বজনের কুদৃষ্টির কবল থেকে নিজেকে রক্ষা করতে মুক্তাগাছা শহরে পদার্পন ঘটে সুফিযার । দরিচার আনি বাজারের বাসিন্দা তাছেন আলীর বাসায় আশ্রয় নেয় । এরপর ঐ বাসার ছোট বাচ্চাদের লালন পালন করতে থাকে । বাড়ির মালিক খুশি হয়ে নগদ ৫শ’ টাকা তুলে দেয় সুফিয়ার হাতে । ৮ বছর আগে এই ৫শ’ টাকা নিয়ে দরিচারআনি বাজারের একটি ভিটিতে শাক সবজির দোকান দেয় সে । ৪ বছর আগে জমানো টাকা খরচ করে এক ব্যক্তিকে বিয়ে করে । বিয়ের পর স্বামী টাকার জন্য চাপ সৃষ্টি করতে থাকে । জুয়াড়ি স্বামীর অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে বিয়ের ৬ মাসেই সংসার ভাঙ্গে তার । প্রতিদিন গড়ে ২শ’ থেকে ৩শ’ টাকা আয় হয় সুফিয়ার । সুফিয়া জানায় , ব্যবসা আর কর্ম ব্যস্ততার মধ্য দিয়ে ভূলে থাকার চেষ্টা করি হারানোর ব্যথা ।