ভেদরগঞ্জে আ:লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ী ভাংচুর, পুলিশ সহ আহত ৭

Sariutpurশরীয়তপুর প্রতিনিধি ঃ সালিশ বৈঠককে কেন্দ্র করে শরীয়পুরের ভেদরগঞ্জের রামভদ্রপুরে আওয়ামীলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। প্রতিবাদে নড়িয়া-ভেদরগঞ্জ সড়কে গাছের গুরি ফেলে ও টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে প্রায় ৩ ঘন্টা সড়ক অবরোধ করে রাখে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ লাঠি চার্জ করে। এসময় পুলিশ ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এঘটনায় ১ পুলিশ কর্মকর্তা সহ অন্তত ৭ জন আহত হয়। এসময় উত্তেজিত নেতাকর্মীরা পুলিশের গাড়িতে হামলা ও ভাংচুর চালায়। পুলিশের উপর হামলার অপরাধে ১ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে শনিবার বেলা  ১২ টার দিকে ভেদরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আব্দুল মান্নান হাওলাদারের ভাই আবুল কালাম রাম ভদ্রপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হক সরদারকে মারধর করে। প্রতিবাদে রামভদ্রপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরা বাজারে বিক্ষোভ মিছিল করে। দুপুর ২ টা হতে ৫টা পর্যন্ত বিক্ষোভকারীরা ভেদরগঞ্জ নড়িয়া সড়কের রামভদ্রপুর রেবতি মোহন উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে গাছের গুরি ফেলে আগুন জালিয়ে সড়ক অবরোধ করে রাখে। এ সময় পুলিশ অবরোধকারিদের রাস্তা থেকে সরাতে চাইলে তারা পুলিশের একটি পিকআপ ভ্যান ভাংচুর করে। পুলিশ ও স্থানীয় নেতাকর্মীদের সাথে প্রায় ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে ভেদরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক রজ্জব আলী, ড্রাইভার আব্দুল্লাহ সহ অন্তত ৭ জন আহত হয়। আহতদের ভেদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় রামভদ্রপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হক সরদারকে আটক করেছে পুলিশ । এ সময় সড়কটিতে ৩ ঘন্টা যান চলা চল বন্ধ থাকে।