নাটোরে দুই উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীর কাজে বাধা, অপপ্রচারের অভিযোগ

natorশেখ তোফাজ্জ্বল হোসাইন, নাটোর প্রতিনিধি:
নাটোরে দ্বিতীয় দফার উপজেলা নির্বাচনের দুই প্রার্থী তাদের কর্মীদের প্রচার কাজে বাধা প্রদান, পোস্টার ছিড়ে ফেলা ও একটি মহল তাদের বিরুদ্ধে পরিকল্পিত ভাবে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন। এর মধ্যে সম্প্রতি বহিস্কৃত জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি সিরাজুল ইসলাম শুক্রবার দুপুরে শহরের একটি রেস্টুরেন্টে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন, তার কর্মীদের প্রচার কাজে বাধা ও তার পোস্টার ছিড়ে ফেলা হচ্ছে। ঐ মহলটি তার বিরুদ্ধে পরিকল্পিত ভাবে অপপ্রচার চালাচ্ছে। সিরাজুল ইসলাম তার প্রার্থীতা থেকে সরে দাঁড়াবেন এমন প্রচার চালানো হচ্ছে। তিনি বলেন এই প্রচারনা একে বারেই মিথ্যা। তিনি নির্বাচন থেকে কোন ভাবেই সরবেন না। জাগোদল ও বিএনপির জন্ম থেকে থাকা চারবার নির্বাচিত সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম বলেন, এবারের মনোনয়নই অগনতান্ত্রিক ভাবে দেয়া হয়েছে, মনোনয়নে তৃনমূলের নেতাকর্মীদের মতামত নেয়া হয়নি। বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া বহিস্কার না করতে নির্দেশ দিলেও তারা একের পর এক বহিস্কার করে চলেছেন। এ সময় তার সাথে এর আগে বহিস্কৃত নাটোর জেলা বিএনপির সাবেক সাধারন সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বাচ্চু উপস্থিত ছিলেন। এদিকে নাটোর জেলা জামায়াত সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী জেলা আমীর অধ্যাপক মোঃ ইউনুস আলী নির্বাচন কমিশনে লিখিত অভিযোগ করে বলেছেন, একটি মহল জামায়াতের জনসমর্থনে ভয় পেয়ে মিথ্যা অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে। তারা প্রচার করছে শেষ পর্যন্ত নাটোর সদরে জামায়াত প্রার্থী ভোটে থাকবে না। এই মিথ্যা প্রচারনা চালিয়ে তার ক্ষতি করার অপচেষ্টা চলছে। তিনি বলেন, নির্বাচনে আছি এবং শেষ পর্যন্তই লড়াই চালিয়ে যাবো। তিনি তার ভোটারদের মিথ্যা প্রচারে কান না দেয়ার অনুরোধ জানান। নাটোর শহরের কান্দিভিটুয়া ও হরিশপুরে তার প্রচার কর্মীদের কাজে বাধা দেয়া হলেও প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। প্রতিদ্বন্দ্বী একাধিক প্রার্থী নির্বাচনী আচরনবিধি না মেনে অটোরিকশায় ডবল মাইক নিয়ে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত প্রচারনা চালাচ্ছেন। লিখিত অভিযোগ করার পরও নির্বাচন কমিশন বিষয় গুলো দেখেও না দেখার মতো সময় পার করে যাচ্ছেন।