73403_lokhmu

লক্ষ্মীপুরে অপহরণের ২২ ঘন্টা পর কলেজছাত্রী উদ্ধার, আটক ৮

বিডি রিপোর্ট 24 ডটকম: লক্ষ্মীপুরে নিজ বাসা থেকে কলেজছাত্রীকে হাত-মুখ বেঁধে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে তুলে নেয়ার ২২ ঘন্টা পর ভিকটিমকে উদ্ধার করছে পুলিশ। এ সময় মূল হোতা হেলাল উদ্দিনসহ ৮ জনকে আটক করা হয়। আজ সোমবার দুপুরে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক প্রেসব্রিফিংয়ে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. লোকমান হোসেন সাংবাদিকের এ তথ্য দেন। এ সময় তিনি বলেন, অপহরণের পর রোববার বিকালে ভিকটিমের মোবাইলের অবস্থানস চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড দেখায়। পরে পুলিশের কয়েকটি টিম ভাগ হয়ে চট্রগ্রামের সীতাকুন্ড, লক্ষ্মীপুর ও নোয়খালীসহ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায়। সন্ধ্যায় নোয়াখালী থেকে অপহৃত কলেজছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়। এসময় মূল হোতা হেলাল উদ্দিনকে আটক করা হয়। এর আগে সদর উপজেলা ও নোয়াখালীতে অভিযান চালিয়ে বেলাল হোসেন, আহাদ উদ্দিন, ইলিয়াছ হোসেন, শুভ ও মো. খোকনসহ ৫ জনকে আটক করা হয়। ওইদিন বিকেলে অপহৃত কলেজছাত্রীর বাবা আবুল কাশেম বাদী হয়ে ১০জনকে আসামী করে সদর থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। শনিবার রাত সাড়ে ১১টায় নিজ বাসা থেকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করা হয় ওই কলেজছাত্রীকে। এসময় বাধা দিলে তার বাবা ও মাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে পালিয়ে সন্ত্রাসীরা। পরে আটককৃত ৫জনকে ওই মামলায় গ্রেপ্তারসহ ৮জনকে আদালতের মাধ্যমে আসামীদের জেলহাজতে প্রেরন করা হয়।
উল্লেখ্য, শনিবার লক্ষ্মীপুর পৌরসভার আবিরনগর এলাকায় ভবানীগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের ওই ছাত্রী নিজ ঘরে একা একা বসে টেলিভিশন দেখছিলেন। পাশের রান্নাঘরে রাতের খাবার খেতে যায় বাবা আবুল কাশেম ও মা কুলসুমা বেগম। পূর্বপরিকল্পিতভাবে রাত সাড়ে ১১টার দিকে ৭/৮জনের একদল সন্ত্রাসী বাড়িতে ডুকে রান্না ঘরের দরজা বাহির থেকে তালা লাগিয়ে দেয়। পরে বাসা ঢুকে কলেজছাত্রী সুইটি আক্তারকে হাত-মুখ বেঁেধ জোর করে অস্ত্রের মুখে সিএনজি অটোরিকশায় তুলে নিয়ে যায়। এ সময় সন্ত্রাসীদের শোরগোল শুনে বাবা আবুল কাশেম ও মা রান্না ঘরের দরজা ভেঙ্গে বের হয়ে এসে সন্ত্রাসীদের বাধা দেয়। এক পর্যায়ে বাবা ও মাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে  পালিয়ে যায় তারা।