9

‘জাতীয় স্বার্থ সংরক্ষণের জন্য যে কারও ওপর নজরদারি হবে’

বিডি রিপোর্ট 24 ডটকম : জাতীয় স্বার্থ সংরক্ষণের জন্য যে কারও ওপর নজরদারিসহ যা কিছু করণীয় সরকার সবই করবে বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী। প্র্রধানমন্ত্রীর সৌদি আরব সফর নিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিদেশ সফররত সাংবাদিকের ওপর সংক্রান্ত নির্দেশনার বিষয়ে মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি এ মন্তব্য করেন। মন্ত্রী বলেন, কাউকে নিয়ন্ত্রণ বা কন্ট্রোল করার জন্য এ নির্দেশনা জারি হয়নি। গণতান্ত্রিক বাংলাদেশে সাংবাদিকরা স্বাধীনতা ভোগ করছেন।
‘যা কিছু ইচ্ছে তাই লেখা হচ্ছে’ এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, বিশ্বের কোন দেশ আছে এরকম? বিদেশে গিয়ে কোনো সাংবাদিক যদি জাতীয় স্বার্থ বিরোধী কোনো কাজ করেন তাদেরকে অবশ্যই নজরদারিতে রাখা উচিত। এবং এক্ষেত্রে সাংবাদিক সামজেরও সমর্থন আশা করেন তিনি।
অবশ্য সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত সাংবাদিকদের তরফে একজন জেষ্ঠ্য কূটনৈতিক প্রতিবেদক নিয়ন্ত্রণমূলক এমন নির্দেশনা প্রত্যাহারে মন্ত্রীর প্রতি জোর দাবি জানান। তিনি বলেন, অনেকেই বিদেশে যান সেখানে কেবলমাত্র সাংবাদিকদের ওপর নজরদারি রাখার নির্দেশনা সার্বজনীন ‘মত প্রকাশের স্বাধীনতার’ ধারণার পরিপন্থী।
এসময় কাউকে বিদেশ সফরে বাধা দেয়া হচ্ছেনা দাবি করে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে বিদেশী সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ করে নিয়ে আসা হচ্ছে। তারা সবকিছু খোলাখুলিভাবে দেখছেন। বাংলাদেশি সাংবাদিকও  বিদেশে যাচ্ছেন। কাউকে বাধা দেয়া হয়নি। কাউকে বাধা দেয়া হলে আমাকে জানাবেন।
সংবাদ সম্মেলনে পরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, ইসলামিক-আমেরিকান শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে আগামী ২০ মে সৌদি আরবে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ আল সৌদের আমন্ত্রণে তিনি এই সফরে যাচ্ছেন। সৌদি আরবে সফররত যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও এ সম্মেলনে যোগ দেবেন।
তিনি আরও বলেন, রিয়াদে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এ সম্মেলনের অন্যতম লক্ষ্য উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় নতুন অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠা, সহনশীলতা ও সহাবস্থান মূল্যবোধের প্রসার এবং নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা জোরদার করা।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাংলাদেশ সৌদি আরবকে কোনও ধরনের সামরিক সহায়তা করবে না। তবে যদি মক্কা ও মদিনা হুমকির সম্মুখীন হয় এবং সৌদি আরব সহায়তা চায় তবে বাংলাদেশ সেখানে সেনা পাঠাবে।